সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতিতে আপনাদের স্বাগতম। সনাতন ধর্মের বিশাল জ্ঞান ভান্ডারের কিছুটা আপনাদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র । আশাকরি ভগবানের কৃপায় আপনাদের ভালো লাগবে । আমাদের ফেসবুক পেজটিকে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন। জয় শ্রীকৃষ্ণ ।।

হিন্দু পৌরাণিক চরিত্র ও অন্যান্য অর্থের পরিচিতি পর্ব ০৩

অম্বা

১.১. দুর্গা দেবীর অপর নাম।
১.২. জনৈকা অপ্সরা বিশেষ।
হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– কাশীরাজের প্রথমা কন্যা। এঁর অপর দুই বোনের নাম হলো– অম্বিকা ও অম্বালিকা। ভীষ্ম চরিত্রের সাথে অম্বা সম্পর্কে আলোচনা করা হয়েছে।


অম্বালিকা


হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– কাশীরাজের কনিষ্ঠা কন্যা। এঁর অপর দুই বানের নাম হলো- অম্বা ও অম্বিকা। ভীষ্ম তাঁর সৎভাই বিচিত্রবীর্যের জন্য এই তিন বোনকে স্বয়ংবর সভা থেকে অপহরণ করেন। ভীষ্মের সৎমাতা সত্যবতীর পুত্র বিচিত্রবীর্যের সাথে অম্বিকা ও অম্বালিকাকে বিবাহ দেন। এই দুই বানের সাথে বিচিত্রবীর্যের অপরিমিত যৌনাচারের ফলে, সাত বৎসর বয়সে যক্ষ্মারোগে তাঁর মৃত্যু হয়। এই দুই বোনের কোনো সন্তান না থাকায়- এঁদের শাশুড়ী সত্যবতী বংশরক্ষার জন্য তাঁর অপর পুত্র ব্যাসদেবের সাথে সহবাস করতে বলেন। ব্যাসদেব মাতৃ আজ্ঞা রক্ষার জন্য এঁরা এই সহবাসে রাজী হন। এক নির্দিষ্ট রাতে ব্যাসদেব অম্বিকার কাছে সঙ্গমের জন্য আসেন। ব্যাসদেব ছিলেন বিরাটকায় পুরুষ। অম্বিকা ঋষিকে দেখে ভয়ে চোখ বন্ধ করে রইলেন। এবং সঙ্গম শেষ না হওয়া পর্যন্ত চোখ খুললেন না। অম্বিকার ঘর থকে বের হয়ে এসে ঋষি তাঁর মাকে বললেন যে– এই কন্যার একটি অন্ধ পুত্র-সন্তান জন্মগ্রহণ করবে, কারণ সঙ্গমকালে কন্যা চোখ বন্ধ করে ছিল। পরে ইনি এক অন্ধপুত্র প্রসব করেন। এই অন্ধপুত্রই হলেন মহাভারতে অন্যতম চরিত্র ধৃতরাষ্ট্র।

সত্যবতী অন্ধ-সন্তানের কথা শুনে ভাবলেন, রাজ্য রক্ষায় অন্ধ-সন্তান অপারগ হবে। তাই ঋষিকে বললেন যে, অম্বালিকাকে সে একটি সন্তান দান করুক। ঋষি মাতৃ-আজ্ঞায় এক নির্দিষ্টরাতে অম্বালিকার শয়নকক্ষে এলেন। অম্বালিকাও ঋষিকে দেখে প্রচণ্ড ভয় পলেন। কিন্তু চোখ বন্ধ করলে অন্ধ সন্তান হবে এই ভয়ে– চোখ খুলে রাখলেন। কিন্তু সেই বিরাটকায় পুরুষের প্রবল সঙ্গমের প্রচণ্ডতায় ও ভয়ে অম্বালিকা পাণ্ডুবর্ণের হয়ে গেলেন। অম্বালিকার ঘর থেকে বের হয়ে এসে ঋষি তাঁর মাকে বললেন যে– এই কন্যার একটি পুত্র-সন্তান জন্মগ্রহণ করবে। তবে এই পুত্র পাণ্ডুবর্ণের হবে। এই পুত্র হলেন মহাভারতে অন্যতম চরিত্র পাণ্ডু। শেষ জীবনে ইনি তাঁর মধ্যমা ভগ্নি অম্বিকার সাথে বনে চলে যান এবং তপস্যায় জীবন অতিবাহিত করেন।


অম্বিকা


হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– কাশীরাজের মধ্যমা কন্যা ও ধৃতরাষ্ট্রের মা। এঁর অপর দুই বানের নাম হলো– অম্বা ও অম্বালিকা। অম্বালিকা চরিত্রের সাথে অম্বিকা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– কাশীরাজের মধ্যমা কন্যা ও ধৃতরাষ্ট্রের মা। এঁর অপর দুই বানের নাম হলো– অম্বা ও অম্বালিকা। অম্বালিকা চরিত্রের সাথে অম্বিকা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– কাশীরাজের মধ্যমা কন্যা ও ধৃতরাষ্ট্রের মা। এঁর অপর দুই বানের নাম হলো– অম্বা ও অম্বালিকা। অম্বালিকা চরিত্রের সাথে অম্বিকা সম্পর্কে বিস্তারিত আলোচনা করা হয়েছে।

অরুণ

ইনি মহর্ষি কশ্যপ মুনির ঔরসে ও বিনতার গর্ভে অণ্ডরূপে জন্মেছিলেন। উল্লেখ্য বিনতা দুটি ডিম প্রসব করেছিলেন। দীর্ঘদিন ডিম দুটি ফুটে কোনো সন্তান বের হচ্ছে না দেখে, অধৈর্য হয়ে বিনতা এর একটি ডিম অকালে ভেঙে ফেলেন। এই ডিম থেকে ঊরুহীন অবস্থায় অরুণের জন্ম হয়। তাই এর অপর নাম হয়েছিল অনূরু বা ঊরুহীন। জন্মের পর অরুণ তাঁর মাকে অভিশাপ দিয়ে বলেন যে- পাঁচশত বৎসর বিনতা তাঁর সপত্নী কদ্রুর দাসী হিসাবে থাকবেন। যদি অসময়ে ইনি অপর ডিমটি না ভাঙেন, তবে ওই ডিম থেকে জন্ম হওয়া সন্তান- তাঁর এই দাসত্ব থেকে মুক্ত করবেন। অরুণ সূর্যের রথের সারথি ছিলেন। সপ্ত অশ্বযোগে ইনি এই রথ পরিচালনা করতেন। এর অপর ভাইয়ের নাম ছিল গরুড়। এঁর স্ত্রীর নাম ছিল শ্যেনী। এঁদের সম্পাতি ও জটায়ু নামে দুটি সন্তান ছিল।


অরুণোদয়-সপ্তমী

অরুণোদয়ে স্থিতা সপ্তমী/মধ্যপদলোপী কর্মধারয় সমাস। মাঘমাসের শুক্লা সপ্তমীকে এই নামে অভিহিত করা হয়। হিন্দু মতে –মাঘ মাসের শুক্লা সপ্তমী সূর্যগ্রহণতুল্য তিথি। ঐ তিথিতে সূর্য উঠার সময় স্নান করলে মহাফল হয়।


অরুন্ধতী

কর্দম প্রজাপতির ঔরসে দেবাহুতির গর্ভে এঁর জন্ম হয়েছিল। বশিষ্ঠ মুনির সাথে এঁর বিবাহ হয়। ইনি অতিশয় বিদুষী হিসাবে খ্যাত ছিলেন। পতিভক্তিতে ইনি অদ্বিতীয়া ছিলেন। এই কারণে, অগ্নিকে কামনা করে স্বাহা এর রূপ ধরতে ব্যর্থ হন। ইনি নক্ষত্ররূপে বশিষ্ঠের পাশে অবস্থান করছেন। হিন্দু বিবাহে কুশণ্ডিকাকালে মন্ত্র উচ্চারণের সময় নববধূকে এই নক্ষত্র দেখানো হয়।


অর্জুন


হিন্দু পৌরাণিক কাহিনিতে এই নামে একাধিক চরিত্র পাওয়া যায়। যেমন–

১. মাহিষ্মতী পুরীতে অর্জুন নামক একজন রাজা ছিলেন। এঁর পিতার নাম ছিল কৃর্তবীর্য। এই কারণে ইনি কার্তবীর্য বা কার্তবীর্যার্জুন নামে পরিচিত ছিলেন।



বালির রাজপথে অর্জুন


২. মহাভারতের অন্যতম চরিত্র। এঁর অপরাপর নাম– অরিমর্দন, কপিকেতন, কপিধ্বজ, কিরীটী, কৃষ্ণসখ, কৃষ্ণসারথি, কৌন্তেয়, গাণ্ডিবধন্বা, গাণ্ডিবী, গুড়াকেশ, চিত্রযোধী, জিষ্ণু, তৃতীয় পাণ্ডব, ধনঞ্জয়, পার্থ, ফল্গুন, ফাল্গুনি, বিজয়, বীভৎসু, শব্দবেধী, শব্দভেদী, শুভ্র, শ্বেতবাহ, শ্বেতবাহন, সব্যসাচী।

পাণ্ডু নামক রাজা কিমিন্দম মুনির অভিশাপের (যে কোন নারীর সাথে সঙ্গম করতে গেলে– পাণ্ডু মৃত্যুবরণ করবেন) কারণে স্ত্রীসংগম থেকে বিরত থাকেন। এই কারণে ইনি তাঁর স্ত্রীদ্বয়ের গর্ভে সন্তান লাভ করতে পারলেন না। এরপর ইনি তাঁর স্ত্রী কুন্তী'কে ক্ষেত্রজ সন্তান উৎপাদনের জন্য অন্য পুরুষকে গ্রহণ করতে অনুরোধ করেন। কুন্তী সন্তান কামনায় তিনবার তিনজন দেবতাকে আহ্বান করেছিলেন। শেষবারে তিনি দেবরাজ ইন্দ্রকে আহ্বান করেন। এর ফলে ইন্দ্রের ঔরসে তিনি অর্জুনকে জন্ম দেন। উল্লেখ্য এঁর পূর্বে একই ভাবে কুন্তী পাণ্ডুর অনুরোধে আরও দুটি সন্তান লাভ করেছিলেন। এরা হলেন- ধর্মের ঔরসে যুধিষ্ঠির ও পবনের ঔরসে ভীম। সেই কারণে অর্জুন তৃতীয় পাণ্ডব নামে পরিচিত হয়ে থাকেন। অবশ্য তবে তারও আগে অবিবাহিতা অবস্থায় সূর্যের ঔরসে কুন্তীর গর্ভে জন্মেছিল কর্ণ। কিন্তু তখন তিনি পাণ্ডুর স্ত্রী ছিলেন না বলে- কর্ণ পাণ্ডব হিসাবে স্বীকৃতি পান নি।

অর্জুন প্রথমে কৃপাচার্যের কাছে, পরে দ্রৌণাচার্যের কাছে অন্যান্য পাণ্ডব ও ধৃতরাষ্ট্রের সন্তানদের সাথে অস্ত্রবিদ্যা ও যুদ্ধনীতি শিক্ষা করেন। ইনি দ্রৌণাচার্যের সকল শিষ্যদের মধ্যে শ্রেষ্ঠ ছিলেন। কথিত আছে দ্রৌণাচার্য তাঁর পুত্র অশ্বত্থামা এবং অর্জুনকে বিশেষ যত্নের সাথে অস্ত্রশিক্ষা দান করছিলেন। ধনুর্বিদ্যায় সমকালীন সকল বীরদের মধ্যে ইনি শ্রেষ্ঠ ছিলেন। কৌরবসভায় অস্ত্রশিক্ষা প্রদর্শনকালে দ্রৌণাচার্য সন্তুষ্ট হয়ে তাঁকে ব্রহ্মশির নামক অমোঘ অস্ত্র দান করেন। গন্ধর্বরাজ অঙ্গারপর্ণকে পরাজিত করে- তাঁর কাছ থেকে তিনি চাক্ষুষী বিদ্যা (যার প্রভাবে যে কোন অদৃশ্য বস্তুকে দেখা সম্ভব হতো) লাভ করেন।

দ্রুপদ-কন্যা দ্রৌপদীর স্বয়ম্বরসভায় অন্যান্য পাণ্ডবদের সাথে ছদ্মবেশে ইনি উপস্থিত হন। এই সভায় একমাত্র তিনিই চক্রমধ্য-মৎস্যকে বিদ্ধ করতে সক্ষম হয়েছিলেন। সে সূত্রে ইনি দ্রৌপদীকে লাভ করেন। কিন্তু মাতৃ-আজ্ঞায় পঞ্চপাণ্ডব একত্রে তাঁকে বিবাহ করেন। দ্রৌপদীকে নিয়ে যাতে ভ্রাতৃবিরোধ না ঘটে, সে কারণে- নারদ নিয়ম করে দেন যে, একটি নির্দিষ্ট সময়ের জন্য, দ্রৌপদী একজন মাত্র পাণ্ডবের স্ত্রী হিসাবে থাকবেন। এই নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অধীকারপ্রাপ্ত পাণ্ডব ব্যতীত অন্য কোন পাণ্ডব দ্রৌপদীকে গ্রহণ করলে বা দ্রৌপদীর সাথে অধিকারপ্রাপ্ত পাণ্ডবের বিহারকালে অন্য পাণ্ডব দর্শন করলে- তাঁকে ১২ বৎসর বনবাসী থাকতে হবে। ঘটনাক্রমে একবার এক ব্রাহ্মণকে সাহায্য করার জন্য- অর্জুন অস্ত্রাগারে প্রবেশ করলে- সেখানে যুধিষ্ঠিরের সাথে দ্রৌপদীকে এক শয্যায় দেখতে পান। এই কারণে ইনি ১২ বৎসর বনবাসের জন্য গৃহত্যাগ করেন। বনবাসকালে ইনি বিভিন্নস্থানে ভ্রমণ করে বেড়ান। এই সময়ে ইনি পরশুরামের সাক্ষাৎ লাভ করেন এবং তাঁর কাছ থেকে অস্ত্রবিদ্যা শিক্ষা করেন। এই ভ্রমণকালে ইনি নাগকন্যা উলূপী ও মণিপুর-রাজকন্যা চিত্রাঙ্গদাকে বিবাহ করেন। তাঁর ঔরসে উলূপীর গর্ভে ইরাবান এবং চিত্রাঙ্গদার গর্ভে বভ্রুবাহনের জন্ম হয়।

এরপর অর্জুন দক্ষিণসাগরের দিকে যাত্রা করেন, পঞ্চতীর্থকে কুমীরমুক্ত করেন। উল্লেখ্য এই তীর্থে অভিশপ্ত অপ্সরা বর্গা ও তাঁর চার সখী কুমিররূপে থাকতেন। অর্জুনের স্পর্শে তাঁরা অভিশাপমুক্ত হন। এরপর অর্জুন দ্বারকায় এলে শ্রীকৃষ্ণের সাথে তাঁর বন্ধুত্ব স্থাপিত হয়। সেখানে শ্রীকৃষ্ণের পরামর্শে ও সহায়তায় তাঁর বোন সুভদ্রাকে হরণ করে অর্জুন বিবাহ করেন। সুভদ্রার গর্ভে তাঁর অভিমন্যু নামে একটি পুত্র জন্মগ্রহণ করে। ১২ বৎসর পর পুনরায় পাণ্ডবদের সাথে ইনি মিলিত হন। এই সময় দ্রৌপদীর সাথে মিলিত হলে, শ্রুতকর্মা নামক একটি পুত্রসন্তান জন্মে।

এই সময় একদিন অর্জুন ও শ্রীকৃষ্ণ যমুনাতীরে ভ্রমণ করার সময় অগ্নি এসে খাণ্ডববন দগ্ধ করার জন্য অর্জুনের সাহায্য প্রার্থনা করেন। অর্জুন তাকে সাহায্য করতে রাজি হলেন। কিন্তু একই সাথে জানালেন যে, উক্ত বন দগ্ধ করতে গেলে দেবতাদের সাথে যুদ্ধ করতে হবে। এবং আরও বললেন যে, দেবতাদের সাথে যুদ্ধ করতে গেলে যে ধরনের অস্ত্র প্রয়োজন, সে ধরনের অস্ত্র তাঁর কাছে নেই। অগ্নিদেব তখন তাঁর সখা বরুণকে অনুরোধ করে– তাঁর কাছ থেকে গাণ্ডীবধনু, অক্ষয় তূণীদ্বয় ও কপিধ্বজা রথ এনে দিলেন। এই সকল অস্ত্রের সাহায্যে কৃষ্ণ ও অর্জুন দেবতাদের পরাস্ত করেন। পরে শর নিক্ষেপে অর্জুন খাণ্ডববন দগ্ধ করেন।
[২২৩-২৪ অধ্যায়। আদিপর্ব। মহাভারত]

এরপর অক্ষক্রীড়ায় যুধিষ্ঠির রাজ্যচ্যুত হলে, অন্যান্য ভাইদের সাথে ইনি ১৩ বৎসরের জন্য বনবাসে যান। এই সময়ে কিরাতবেশী মহাদেব-এর সাথে তাঁর যুদ্ধ হয়। যুদ্ধে মহাদেব সন্তুষ্ট হয়ে অর্জুনকে পাশুপাত অস্ত্র প্রদান করেন। এরপর ইন্দ্র, বরুণ, কুবের ও যমের সাথে সাক্ষাৎ লাভ করেন এবং তাঁদের শ্রেষ্ঠ অস্ত্রসমূহ লাভ করেন। এরপর তাঁর পিতা ইন্দ্র তাঁকে স্বর্গে নিয়ে যান। সেখানে ইনি গন্ধর্বরাজ চিত্রসেনের কাছে নৃত্যগীতি শিক্ষা করেন। স্বর্গবাসকালে উর্বশী তাঁকে প্রেম নিবেদন করলে- ইনি তাঁকে মাতৃজ্ঞানে প্রত্যাখ্যান করেন। এই কারণে, উর্বশী তাঁকে এক বৎসর নপুংসক অবস্থায় অতিবাহিত হওয়ার অভিশাপ দেন। এরপর ইনি ইন্দ্রের কাছে অস্ত্রশিক্ষা সমাপ্ত করেন। শিক্ষা শেষে ইনি গুরুদক্ষিণা বাবদ- ইন্দ্রের শত্রু নিবাতকবচ নামক তিন কোটি দানবকে তাদের সমুদ্র মধ্যস্থ দুর্গসহ ধ্বংস করেন এবং পৌলম ও কালকেয় অসুরদের বিনাশ করেন। এই কারণে ইন্দ্র সন্তুষ্ট হয়ে- তাঁকে অভেদ্য দিব্যকবচ, হিরণ্ময়ী মালা, দেবদত্ত শঙ্খ, দিব্যকিরীট, দিব্যবস্ত্র ও ভরণ উপহার দেন। পাঁচ বৎসর ইন্দ্রলোকে থাকার পর ইনি বনে এসে ভাইদের সাথে যোগ দেন।

এরপর দ্বৈতবনে থাকাকালে গন্ধর্বরাজ চিত্রসেন দুর্যোধনকে বন্দী করেন। এই কারণে চিত্রসেনের সাথে অর্জুনের যুদ্ধ হয়। যুদ্ধে অর্জুন চিত্রসেনকে পরাজিত করে দুর্যোধনকে উদ্ধার করেন।

সিন্ধুরাজ দ্রৌপদীকে হরণ করলে, অর্জুন ও ভীম মিলে তাঁকে শাস্তি দেন। এরপর এঁরা মৎস্যরাজ বিরাট-ভবনে উপস্থিত হন। সেখানে উর্বশীর শাপে অর্জুন নপংশুক হয়ে বৃহন্নলা নাম ধারণ করেন। এই বেশে বিরাট-কন্যা উত্তরাকে ইনি নৃত্যগীত শেখানোর দায়িত্ব গ্রহণ করে এক বৎসর অতিবাহিত করেন। পাণ্ডবদের এই অজ্ঞাতবাসের শেষাংশে দুর্যোধন বিরাটরাজের গোধন হরণ করলে বৃহন্নলারূপী অর্জুন কৌরব-সৈন্যদের পরাস্ত করে গোধন উদ্ধার করেন। যুদ্ধ শেষে বিরাটরাজ অর্জুনের সাথে উত্তরার বিবাহ ঠিক করেন। কিন্তু শিষ্যা কন্যার মত বলে ইনি নিজ পুত্র অভিমন্যুর সাথে উত্তরার বিবাহ দেন।

কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে ইনি কৃষ্ণকে উপদেষ্টা ও তাঁর রথের সারথি হিসাবে লাভ করেন। এরপর অর্জুন স্বজনবধে বিমুখ হলে- কৃষ্ণ তাঁকে উপদেশ দিয়ে যুদ্ধে প্রবৃত্ত করেন। এই উপদেশসমূহের সংকলনই হলো- শ্রীমদ্ভগভদ্গীতা। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে ইনি অসংখ্য কৌরব-সৈন্যকে হত্যা করেন। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধের দশম দিনে এঁর শরাঘাতে ভীষ্ম শরশয্যা গ্রহণ করে- ইচ্ছামৃত্য গ্রহণ করেন। এছাড়া যুদ্ধের দ্বাদশ দিনে ভগদত্তকে, চতুর্দশ দিনে অভিমন্যু বধের প্রতিজ্ঞা স্বরূপ জয়দ্রুতকে, পঞ্চদশ দিনে দ্রোণাচার্যকে, ষোড়শ দিনে মগধরাজ দণ্ডধারকে ও সপ্তদশ দিনে কর্ণকে হত্যা করেন।

যুদ্ধজয়ের পর যুধিষ্ঠির অশ্বমেধযজ্ঞের আয়োজন করেন। যজ্ঞের অশ্ব রক্ষার জন্য অর্জুন যাত্রা করে ত্রিগর্ত, প্রাগ্‌জ্যোতিষপুর ও সিন্ধুদেশ জয় করেন। মণিপুরে নিজপুত্র বভ্রুবাহনের সাথে যুদ্ধে ইনি প্রাণ হারালে– অর্জুনের স্ত্রী নাগকন্যা উলূপী নাগলোক থেকে সঞ্জীবনী এনে তাঁকে জীবিত করে তোলেন। এরপর ইনি অশ্বসহ স্বরাজ্যে ফিরে সেন। এরপর শ্রীকৃষ্ণের মৃত্যু ও যাদবকুলের বিনাশের সংবাদ পেয়ে ইনি দ্বারকায় যান। অর্জুন সেখানকার নারীদের নিয়ে ইন্দ্রপ্রস্থে ফিরে আসার সময়- পথে আভীর দস্যুরা যাদব-নারীদের লুণ্ঠন করে। কৃষ্ণের মৃত্যু ও নিজ দৈবশক্তি হানির ফলে ইনি দস্যুদের বাধা দিতে পারেন নাই।

পাণ্ডবরা অর্জুনের পৌত্র (অভিমন্যুর পুত্র) পরীক্ষিত্কে রাজা করে মহাপ্রস্থানে গমন করেন। পথে লোহিত সাগরের তীরে অগ্নিদেবের অনুরোধে অর্জুন গাণ্ডীবধনু ও অক্ষয় তূণ দুটি পরিত্যাগ করেন। হিমালয় পার হয়ে মহাস্থানের পথে যেতে যেতে- দ্রৌপদী, সহদেব, নকুলের পতনের পর অর্জুনের মৃত্যু হয়। ভীমের প্রশ্নে উত্তরে যুধিষ্ঠির বলেন, –অর্জুন একদিনে শত্রু-সৈন্য বিনষ্ট করবার প্রতিজ্ঞা করে তা রক্ষা করতে অসমর্থ হয়েছিলেন এবং অন্যান্য ধনুর্ধরদের অবজ্ঞা করতেন বলেই এঁর পতন হয়েছে।

অর্বাবসু

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– ইনি ছিলেন মহর্ষি রৈভ্যের সন্তান। এঁরা ছিলেন দুই ভাই। এর অপর ভাইয়ের নাম ছিল পরাবসু। উভয় ভাই অত্যন্ত যত্নের সাথে পিতা রৈভ্যর কাছে বেদ শিক্ষা করেন। ফলে উভয়কেই ব্রাহ্মণ ও দেবতারা অত্যন্ত সম্মান করতো।

অন্যদিকে রৈভ্যের প্রতিবেশী ছিলেন ভরদ্বাজ নামক প্রখ্যাত ঋষি। এই ঋষি ও তাঁর পুত্র যবক্রীত বেদ অধ্যয়ন না করে তপস্যার দ্বারা বেদজ্ঞান লাভের চেষ্টা করেছিলেন বলে, অন্যান্য ঋষিরা ভরদ্বাজ ও যবক্রীতকে সম্মান করতেন না। বিষয়টি লক্ষ্য করে যবক্রীত কঠোর তপস্যা শুরু করেন। এই তপস্যায় ইনি কোন গুরুর সাহায্য নিলেন না। এই তপস্যায় ইনি এতই কঠোরভাবে নিমগ্ন হয়ে পড়লেন যে, ইন্দ্র অত্যন্ত ভীত হয়ে পড়লেন এবং তাঁকে গুরুর কাছে বেদ শিক্ষার পরামর্শ দিলেন। কিন্তু যবক্রীত ইন্দ্রের কথা না শুনে তপস্যা চালিয়ে যেতে লাগলেন। এরপর ইন্দ্র যক্ষ্মারুগী ব্রাহ্মণের রূপ ধরে গঙ্গা তীরে এসে বার বার মুঠি মুঠি বালি পানিতে ফেলতে লাগলেন। এই দেখে যবক্রীত ব্রাহ্মণরূপী ইন্দ্রকে এর কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। এর উত্তরে ইন্দ্র বললেন, তুমি যেমন বেদজ্ঞ হওয়ার আশায় বৃথা তপস্যা করছ, আমিও তেমনি বালু দিয়ে গঙ্গায় সেতু বাঁধার চেষ্টা করছি। যবক্রীত পরে ইন্দ্রের পরিচয় জানতে পেরে তাঁর কাছে বিদ্বান হওয়ার বর প্রার্থনা করলেন। তখন ইন্দ্র খুশী হয়ে পিতাপুত্রকে বেদজ্ঞ হবার বর দান করেলেন। এরপর যবক্রীত এই বিষয়টি তাঁর পিতা ভরদ্বাজকে জানালে, ভরদ্বাজ যবক্রীতকে বললেন, অভীষ্ট বর পেয়ে তুমি অহঙ্কারী ও ক্ষুদ্রমনা হবে, ফলে তোমার মৃত্যু হবে।

এর কিছুদিন পর, একদিন যবক্রীত পরাবসুর সুন্দরী স্ত্রীকে দেখে মুগ্ধ হয়ে তাঁকে কামনা করলেন। বিষয়টি বুঝতে পেরে পরাবসুর স্ত্রী ভয় পেয়ে সেখানে থেকে পালিয়ে যান। এই সংবাদ পেয়ে রৈভ্য অত্যন্ত ক্রুদ্ধ হয়ে তাঁর দুইগাছি জটা ছিন্ন করে আগুনে নিক্ষেপ করলে এক সুন্দরী নারী ও একটি রাক্ষস সৃষ্টি হয়। যবক্রীতকে হত্যা করার জন্য রৈভ্য উভয়কে আদেশ করেন। এরপর রৈভ্য প্রেরিত সেই নারী যবক্রীতকে রূপ দ্বারা মুগ্ধ করে তাঁর কমণ্ডলু চুরি করে। কমণ্ডলুহীন হয়ে যবক্রীত আত্মরক্ষার ক্ষমতা হারিয়ে ফেলেন। এই সময় রৈভ্য প্রেরিত রাক্ষস শূল তুলে তাঁকে হত্যা করার জন্য অগ্রসর হয়। যবক্রীত বিপদ বুঝতে পেরে দৌড়ে ভরদ্বাজের অগ্নিহোত্র গৃহে আশ্রয় নিতে গেলে- সেই ঘরের অন্ধ রক্ষী তাঁকে সবলে ধরে রাখে। ফলে রাক্ষস অনায়াসে শূলের আঘাতে যবক্রীতকে হত্যা করে। ভরদ্বাজ পুত্রের মৃত্যু সংবাদ পেয়ে রৈভ্যকে অভিশাপ দিয়ে বলেন যে- কনিষ্ঠ পুত্রের হাতেই রৈভ্যের মৃত্যু হবে। এরপর ভরদ্বাজ আগুনে আত্মহত্যা করেন।

এর কিছুদিন পর রাজা বৃহদ্যুম্নের একটি যজ্ঞ করার আয়োজন করেন। উক্ত যজ্ঞের কাজে রাজা অর্বাবসু ও পরাবসুকে নিযুক্ত করেন। একদিন রাত্রে পরাবসু আশ্রমে ফেরার সময় বনের মধ্যে রৈভ্যকে দেখে হরিণ মনে করে হত্যা করেন। পিতার হত্যার পর পরাবসু তাঁর বড় ভাই অর্বাবসুকে পিতৃহত্যার কথা বলেন। এরপর পরাবসুর কথামতো অর্বাবসু আশ্রমে গিয়ে প্রায়শ্চিত্ত করে রাজা বৃহদ্দ্যুম্নের যজ্ঞে যোগদান করেন। কিন্তু রাজা ভাইয়ের পিতৃহত্যার অপরাধে- অর্বাবসুকে বিতারিত করেন। এরপর অর্বাবসু বনে গিয়ে সূর্যের উপাসনা করতে লাগলেন। উপাসনার ফলে সূর্য ও দেবতারা খুশি হয়ে অর্বাবসুকে বর প্রদান করেন। এই বরে রৈভ্য, ভরদ্বাজ ও যবক্রীত পুনর্জীবিত হন এবং পরবাসুর পাপ দূর হয়।

পুনর্জীবন লাভ করার পর যবক্রীত দেবতাদের জিজ্ঞাসা করলেন, তিনি বেদাধ্যায়ী ও তপস্বী হওয়া সত্ত্বেও রৈভ্য তাঁকে কেমন করে হত্যা করার ক্ষমতা লাভ করলেন? উত্তরে দেবতারা বললেন- গুরুর সাহায্য না নিয়ে কেবল তপস্যার ফলে বেদশিক্ষা করেছিলেন যবক্রীত। কিন্তু রৈভ্য অতি কষ্টে গুরুর কাছে দীর্ঘকাল বেদপাঠ করেছিলেন। সে কারণে ক্ষমতার বিচারে রৈভ্য ছিলেন শ্রেষ্ঠ স্থানে।



অর্যমা

ঋগ্বেদ এর মতে- আদিত্যেদের একজন। ঋগ্বেদের ২য় মণ্ডলের ২৭ সূক্তে ছয়জন আদিত্যের নাম পাওয়া যায়। এঁরা হলেন মিত্র, অর্যমা, ভগ, বরুণ, দক্ষ এবং অংশ। কশ্যপ -এর ঔরসে অদিতি'র গর্ভে এঁর জন্ম হয়েছিল। দ্বাদশমূর্তি রূপে সূর্য দ্বাদশ আদিত্য-এ বিভাজিত।

প্রাচীন ভারতীয় আর্য এবং ইরানীয় আর্যরা মিত্রের পূজা করতেন। ইরানীয় আর্যরা মিথ্র (আলো বা সূর্য) হিসেবে পূজা করতেন। ভারতীয় আর্যরাও মিত্রকে আলো বা দিনের দেবতা হিসেবে মান্য করতেন



অশ্বত্থামা

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনিতে দুটি ক্ষেত্রে এই নাম পাওয়া যায়। যেমন–
১. একটি হাতির নাম পাওয়া যায়। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে পাণ্ডব পক্ষের রাজা ইন্দ্রবর্মার হস্তির নাম ছিল অশ্বত্থামা। এই হাতির মৃত্যু হলে— যুদ্ধের কৌশল হিসাবে যুধিষ্ঠির দ্রোণাচর্যের সামনে নাম উচ্চারণ করেছিলেন।

২. পিতার নাম দ্রোণাচার্য ও মাতার নাম কৃপী। ইনি জন্মের পরপরই অশ্বের মতো শব্দ করেছিলেন বলে- এঁর এরূপ নামকরণ করা হয়েছিল। অর্থাৎ অশ্বের ন্যায় স্থাম যাহার/ বহুব্রীহি সমাস– এই অর্থে সকার স্থানে তকারাদেশে নাম হয়েছিল অশ্বত্থামা। মহাদেব, যম, কাম ও ক্রোধের মিলিত অংশে এঁর জন্ম হয়েছিল। ইনি অত্যন্ত সুপুরুষ ছিলেন। এঁর চোখ ছিল পদ্ম-পলাশের মতো। তাঁর মাথায় একটি সহজাত মণি ছিল। এঁর পরিধেয় বস্ত্র ছিল নীল।

ইনি তাঁর পিতার কাছ থেকে বেদাদিশাস্ত্র ও ধনুর্বেদ শিক্ষা গ্রহণ করেছিলেন। পরে পিতা-মাতার সাথে ইনি হস্তিনাপুরে কৃপাচার্যের (কৃপী'র ভাই ও অশ্বত্থামার মামা) কাছে আসেন। এই সময় ভীষ্ম দ্রোণাচার্যকে কুরু-পাণ্ডবদের অস্ত্র শিক্ষায় নিয়োগ করলে তাঁদের সাথে ইনিও অস্ত্র শিক্ষা গ্রহণ করেন। পুত্রের প্রতি অত্যধিক স্নেহবশত ইনি অন্যান্য শিষ্যদের চেয়ে অশ্বত্থামাকে অধিকতর শিক্ষা প্রদান করেন। এর ফলে অশ্বত্থামা বহু গুপ্ত অস্ত্র প্রয়োগের কৌশল পিতার কাছ থেকে শিখেছিলেন। পিতার কাছ থেকে নারায়ণ প্রদত্ত নারায়ণাস্ত্র ও ব্রহ্মশির নামক অস্ত্র লাভ করেন। পাণ্ডবদের বনবাসকালে দুর্যোধন কর্তৃক সম্মানিত হয়ে ইনি হস্তিনাপুরে অবস্থান করেন। এই সময় ভূমণ্ডলে অজেয় হওয়ার আশায় ইনি দ্বারকায় গিয়ে কৃষ্ণের কাছে ব্রহ্মশির অস্ত্রের বিনিময়ে সুদর্শনচক্র প্রার্থনা করেন। কৃষ্ণ তাঁর মনোভাব বুঝতে পেরে তাঁকে উক্ত চক্র উত্তোলন করতে বললে- ইনি তা উত্তোলনে অক্ষম হন এবং লজ্জিত হয়ে নতশিরে প্রত্যাগমন করেন।

দ্রোণাচার্য বিরাটরাজার গো-হরণের সময় ইনি দুর্যোধনের সাথে গিয়েছিলেন। বৃহন্নলাবেশী অর্জুনকে দেখে কর্ণ আস্ফালন করতে থাকলে, ইনি অর্জুনের শক্তির কথা উল্লেখ করে কর্ণকে তিরস্কার ও অপমান করেন। কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে ইনি তাঁর পিতার সাথে দুর্যোধনের পক্ষাবলম্বন করেন। যুদ্ধের আরম্ভে, দম্ভের সাথে ইনি প্রতিজ্ঞা করে বলেছিলেন- দশদিনে ইনি পাণ্ডব সৈন্য নিধন করবেন। বলাবাহুল্য তিনি তা পারেন নি। দুর্যোধন এঁর হাতে এক অক্ষৌহিনী (২১৮৭০ গজ ও গজারোহী, ২১৮৭০ রথ ও রথী, ৬৫৬১০ অশ্ব ও অশ্বারোহী এবং ১০৯৩৫০ পদাতিক ) সৈন্যের ভার অর্পণ করেছিলেন। এঁর রথের পতাকায় সিংহের লেজ অঙ্কিত ছিল।

কুরুক্ষেত্রের যুদ্ধে দ্রোণাচার্য অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠলে- শ্রীকৃষ্ণ পাণ্ডবদের সকল সৈন্যকে 'অশ্বত্থামা নিহত হয়েছে'- এইরূপ ঘোষণা দিতে বলে। সেইভাবে এই বাক্য ঘোষিত হতে থাকলে দ্রোণাচার্য প্রথমে তা অবিশ্বাস করে বলেন যে,- যুধিষ্ঠির বললে তবেই তিনি তা বিশ্বাস করবেন। এরপর কৃষ্ণ ও ভীমের প্ররোচনায় যুধিষ্ঠির দ্রোণের উদ্দেশ্যে 'অশ্বত্থামা হতঃ- কুঞ্জর ইতি' (অশ্বত্থামা -নামক হাতী নিহত হয়েছে) বাক্য উচ্চারণ করেন। উল্লেখ্য পাণ্ডব পক্ষের রাজা ইন্দ্রবর্মার হস্তির নাম অশ্বত্থামা ছিল এবং তা পূর্বেই নিহত হয়েছিল। যুধিষ্ঠির কুঞ্জর ইতি শব্দটি আস্তে বলাতে দ্রোণচার্য মনে করেন যে তাঁর পুত্র অশ্বত্থামার মৃত্যু সংবাদ দেওয়া হয়েছে। এরপর দ্রোণাচার্য অস্ত্র ত্যাগ করলে– ধৃষ্টদ্যুম্ন তাঁকে হত্যা করেন। অশ্বত্থামা তাঁর পিতার এরূপ মৃত্যুর কথা শুনে নারায়ণাস্ত্র নিক্ষেপ করে। কিন্তু কৃষ্ণের উপদেশে সকলে রথ ও অস্ত্রাদি ত্যাগ করে অস্ত্রের দিকে পিছন ফিরে দাঁড়ালে এই অস্ত্র বিফল হয়। এরপর ইনি পিতার হত্যাকারী ধৃষ্টদ্যুম্নকে হত্যা করার জন্য বার বার চেষ্টা সত্বেও ভীম, অর্জুন ও সাত্যকির কারণে তা সম্ভব হয় নি। এই সময় অসংখ্য পাণ্ডব সৈন্য ধ্বংস করার পরও কৃষ্ণার্জুনকেও হত্যা করতে সক্ষম হলেন না। এরপর অর্জুন-কর্ণের যুদ্ধে অর্জুনের বীরত্ব দেখে ইনি দুর্যোধনকে পাণ্ডবদের সাথে সন্ধির প্রস্তাব দিতে বলেন। দুর্যোধন সে কথা না শুনে যুদ্ধ অব্যাহত রাখেন।

অর্জুন কর্তৃক কর্ণ নিহত হলে- দুর্যোধন তাঁর কাছে নূতন সেনাপতি নিয়োগের পরামর্শ নিতে এলে- ইনি শল্যকে সে পদ দিতে বলেন। দুর্যোধনের উরুভঙ্গের পর ইনি সেনাপতিত্বে অভিষিক্ত হন। সেনাপতি পদ লাভ করার পর ইনি চিত্কার করতে করতে অগ্রসর হলে- কৃপাচার্য ও কৃতবর্মা তাঁকে অনুসরণ করে। শেষ পর্যন্ত তাঁরা সন্ধ্যার দিকে একটি বনে প্রবেশ করেন। একটি প্রকাণ্ড গাছের নীচে কৃপাচার্য ও কৃপবর্মা ঘুমিয়ে পড়লেও পাণ্ডবদের প্রতি ক্রোধের কারণে অশ্বত্থামা ঘুমাতে পারলেন না। সেই সময় ইনি দেখলেন যে- একটি বিশাল পেঁচা রাত্রির অন্ধকারে অসংখ্য ঘুমন্ত কাককে হত্যা করছে। এ দৃশ্য দেখার পর ইনি সিদ্ধান্ত নিলেন যে, রাত্রের অন্ধকারে পাণ্ডবশিবিরে প্রবেশ করে এইভাবে পাণ্ডবদের হত্যা করবেন। এই কাজের জন্য ইনি কৃপাচার্য ও কৃতবর্মাকে ঘুম থেকে জাগিয়ে তাঁর কাজে সাহায্যের জন্য অনুরোধ করলেন। প্রথমে এঁরা রাজী না হলেও শেষ পর্যন্ত ইনি তাঁদেরকে তাঁর অনুগামী হতে বাধ্য করলেন। পাণ্ডব শিবিরে প্রবেশের মুখে ইনি মহাদেবের আরাধনা করলে, স্বয়ং মহাদেব আবির্ভুত হয়ে তাঁকে খড়্গ প্রদান করেন। উল্লেখ্য, এই সময় পঞ্চপাণ্ডব, কৃষ্ণ ও সাত্যকি গঙ্গাতীরে অবস্থান করছিলেন। এরপর কৃপাচার্য ও কৃতবর্মাকে দ্বার রক্ষক হিসাবে নিযুক্ত করে ইনি পাণ্ডব শিবিরে প্রবেশ করে প্রথমে ধৃষ্টদ্যুম্নকে হত্যা করেন। এরপর খড়্গাঘাতে- উত্তমৌজাঃ, যুধামনু্যকে হত্যা করলে, অন্যান্য পাণ্ডব-বীরেরা জেগে উঠেন এবং তাঁরা অশ্বত্থামাকে আক্রমণ করেন। কিন্তু অশ্বত্থামা পাল্টা আঘাতে সবাইকে হত্যা করতে সক্ষম হন। এরপর ইনি দ্রৌপদীর পুত্রদের, শিখণ্ডী ও অন্যান্য পাণ্ডব বীরদের হত্যা করেন। এই সময় যারা ভয়ে শিবির থেকে পলায়নের চেষ্টা করেন তাঁদেরকেও কৃপাচার্য ও কৃতবর্মা হত্যা করেন। এই সময় কৃতবর্মার অসতর্কতার কারণে ধৃষ্টদ্যুম্নের সারথি কোন প্রকারে পালাতে সক্ষম হন। পরদিন যুধিষ্ঠিরকে সকল বিষয় জানালে, দ্রৌপদী পুত্র ও ভ্রাতৃশোকে প্রতিজ্ঞা করে বলেন যে, অশ্বত্থামাকে পরাজিত করে তাঁর সহজাতমণি যদি যুধিষ্ঠির ধারণ না করতে পারেন, তবে তিনি প্রায়োপবেশনে প্রাণ ত্যাগ করবেন। এরপর ভীম অশ্বত্থামাকে হত্যা করার জন্য অগ্রসর হলে তাঁকে সাহায্য করার জন্য যুধিষ্ঠির অর্জুনকে সাথে নিয়ে অগ্রসর হন।

অশ্বত্থামা এই হত্যাকাণ্ড ঘটানোর পর প্রথমে দুর্যোধনকে সংবাদ দান করলে, আনন্দে ইনি তাঁকে আশীর্বাদ করে মৃত্যুবরণ করেন। এরপর ইনি ভাগীরথীর তীরে ব্যাসদেবের কাছে যান। এঁকে খুঁজতে খুঁজতে যুধিষ্ঠির ভীম ও অর্জুন সেখানে উপস্থিত হলে- ইনি পাণ্ডব নিধনের উদ্দেশ্যে ব্রহ্মশির অস্ত্র প্রয়োগ করেন। কৃষ্ণের নির্দেশে অর্জুনও প্রতিষেধক হিসাবে একই অস্ত্র প্রয়োগ করলে- উভয় অস্ত্রের কারণে পৃথিবী ধ্বংসের উপক্রম হয়। সে কারণে দেবর্ষি নারদ ও মহর্ষি ব্যাস এই দুই অস্ত্রের মাঝখানে দাঁড়িয়ে উভয়ের অস্ত্র সংবরণ করতে বলেন। অর্জুন ব্রহ্মচর্য পালনের কারণে অস্ত্র প্রতিহারে সমর্থ হলেও, অশ্বত্থামা সদা সত্পথে না থাকায় ইনি তাঁর অস্ত্র প্রত্যাহার করতে পারলেন না। ফলে উক্ত অস্ত্র ব্যর্থ হয়ে অর্জুনের পুত্রবধু উত্তরার গর্ভস্থ শিশুকে হত্যা করে। পরে কৃষ্ণ যোগবলে শিশুটিকে জীবিত করেন।

অশ্বত্থামা এর পরে পাণ্ডবদের কাছে পরাজয় স্বীকার করে তাঁর সহজাত মণি প্রদান করেন। এরপর দুঃখিত মনে বনে গমন করেন। অশ্বত্থামা বিবাহ করেন নি। ব্রাহ্মণ হয়েও ইনি পিতার মতো ক্ষাত্রবৃত্তি অবলম্বন করেছিলেন।


অশ্বপত

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– ইনি মুদ্রা দেশের রাজা ছিলেন। ইনি সন্তান লাভের জন্য সাবিত্রী'র আরাধনা করেন। দেবীর বরে এক কন্যা সন্তান জন্মগ্রহণ করলে ইনি এই কন্যার নাম রাখেন সাবিত্রী। এই সাবিত্রীই হলো- মহাভারতে বর্ণিত সাবিত্রী-সত্যবান উপাখ্যানের নায়িকা।


অশ্বমেধ

ভারতীয় আর্যদের পালিত যজ্ঞ বিশেষ। অশ্ব বলি দিয়ে এই হোম বা যজ্ঞ করা হতো। বড় বড় রাজারাই এই যজ্ঞ করতেন।

নিরানব্বইটি যজ্ঞ করার পর সর্বসুলক্ষণাক্রান্ত একটি অশ্বের কপালে জয়পত্র বেঁধে ছেড়ে দেওয়া হতো। যজ্ঞের ঘোড়ার বর্ণনায় বলা হয়েছে― এই ঘোড়া হবে কৃষ্ণবর্ণের, মুখ সুবর্ণতুল্য, মুখের দুই পাশে থাকবে অর্ধচন্দ্র চিহ্ন অঙ্কিত, পুচ্ছ হবে বিদ্যুতের মতো প্রভাযুক্ত, পেট হবে কুন্দ ফুলের ন্যায় শ্বেতবর্ণ। এর হরিৎবর্ণের পা থাকবে এবং কান হবে সিঁদুরের মতো রক্তিম। জিহ্বা হবে প্রজ্জ্বলিত আগুনের মতো, চোখ হবে তেজস্কর এবং সর্বাঙ্গ জুড়ে থাকেব সুগন্ধ।

এই ঘোড়া হবে অত্যন্ত বেগবান। এইরূপ ঘোড়া এক বৎসর ধরে ইচ্ছামতো ঘুরে বেড়াত। এই সময়, এই ঘোড়াকে রক্ষা করার জন্য এর সাথে সৈন্যসামন্ত থাকতো। কেউ ওই ঘোড়াকে ধরলে এর সাথের সৈন্যরা তার সাথে যুদ্ধ করে সে ঘোড়াকে উদ্ধার করতো। এইভাবে বৎসরান্তে ঘোড়াটি ফিরে এলে, ঘোড়ার অধিকারী রাজা রাজচক্রবর্তী উপাধি প্রাপ্ত হতেন। ঘোড়া ফিরে এলে ব্রাহ্মণেরা শাস্ত্রমতে তাকে হত্যা করতো। রাত্রে রাজপত্নীরা এই ঘোড়াকে রক্ষা করতেন।

এই যজ্ঞে অশ্বকে বলিদানকালে বাঁধার জন্য একুশটি কাঠের যূপ তৈরি করা হতো। এর ছয়টি যূপ বেলকাঠের, ছয়টি খদির কাঠের, ছয়টি পলাশ কাঠের, দুটি দেবদারু কাঠের এবং একটি শ্লাষ্মতক কাঠ দিয়ে তৈরি করা হতো। এই যজ্ঞে অশ্ব ছাড়াও প্রায় তিনশত গরু, ছাগল এবং মেষও বলি দেওয়া হতো।এরপর অশ্ব বলি দেওয়া হতো। যজ্ঞের অশ্বের বক্ষঃস্থলের মেধ অগ্নিতে সংস্কার করা হত এবং দেহের অবশিষ্টাংশ দ্বারা হোম করা হতো।

আর্যরা মনে করতেন, এই যজ্ঞের ফলে ব্রহ্মহত্যাসহ সর্বপ্রকার পাপের ক্ষয় এবং স্বর্গ ও মোক্ষ লাভ হবে। যজ্ঞশেষে ব্রাহ্মণদের দক্ষিণা এবং নিমন্ত্রিত রাজা ও অন্যান্য বর্ণের অতিথিদের উপহার দেওয়া হতো।

রামচন্দ্র ও যুধিষ্ঠির এই যজ্ঞ করেছিলেন। রাজা দশরথ পুত্র-কামনায় এই যজ্ঞ করেছিলেন। কথিত আছে শত অশ্বমেধ যজ্ঞ করলে ইন্দ্রত্ব লাভ করা যায়। এই কারণে ইন্দ্র তাঁর ইন্দ্রত্ব রক্ষার জন্য শতমেধ যজ্ঞের বাধা দিতেন। এই কারণেই ইন্দ্র দিলীপ ও সগররাজের শততম অশ্বমেধ যজ্ঞের অশ্ব অপহরণ করেছিলেন।

ব্রহ্মপুরাণে কলিকালে এই যজ্ঞ নিষিদ্ধ ঘোষিত হয়েছে। অবশ্য আমেরের রাজা সেওয়ার জয়সিংহ অশ্বমেধ যজ্ঞ করেছিলেন।

অশ্বসেন

দ্রোণাচার্য-এর রথের সারথির নাম।

নাগ বিশেষ। এর পিতার নাম তক্ষক। কৃষ্ণ ও অর্জুন কর্তৃক খাণ্ডববন দহনকালে এর মা একে গলধকরণ করে বাইরে আনার চেষ্টা করলে অর্জুন তার শিরোশ্ছেদ করেন। এই সময় ইন্দ্র ঝড়বৃষ্টি সৃষ্টি করে অর্জুনকে মোহাচ্ছন্ন করলে অশ্বসেন মুক্ত হয়। অগ্নি, কৃষ্ণ ও অর্জুন তাকে অভিশাপ দিয়ে বলেন যে― সে নিরাশ্রয় হবে।

কর্ণার্জুন যুদ্ধের সময় অশ্বসেন মাতৃহত্যার প্রতিশোধ নেয়ার জন্য অর্জুনকে হত্যা করার প্রতিজ্ঞা নিয়ে, কর্ণের অজ্ঞাতে তাঁর তূণে প্রবেশ করেছিল। কর্ণ যখন অর্জুনের উদ্দেশ্যে বাণ নিক্ষেপ করেন, তখন কৃষ্ণ এই বিষয়ে অবগত হয়ে রথ নিচু করেন। ফলে অশ্বসেন বাণ হয়ে অর্জুনের মুকুট দগ্ধ করে। এরপর অশ্বসেন কর্ণের কাছে গিয়ে আত্মপরিচয় দিয়ে তাকে পুনরায় বাণরূপে ব্যবহার করতে অনুরোধ করে। কিন্তু কর্ণ একবাণ দুইবার ব্যবহার না করতে এবং অন্যের সাহায্যে জয়লাভে অসম্মত হওয়ায়, অশ্বসেন নিজেই অর্জুনকে হত্যা করার জন্য ধাবিত হয় এবং অর্জুনের অস্তরাঘাতে নিহত হয়।


অশ্বায়ুর্বেদ
অশ্বের আয়ুর্বেদ বিষয়ক শাস্ত্র। শালিহোত্র তাঁর পুত্র সুশ্রুতকে ঘোড়ার চিকিৎসা বিষয়ক এই শাস্ত্র প্রদান করেছিলেন।


অশ্বিনী
হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি অনুসারে–
১. প্রজাপতি দক্ষের কন্যা। এঁর সাথে চন্দ্রের বিবাহ হয়েছিল। চন্দ্রের ছিল ২৭টি স্ত্রী। এই স্ত্রীরা সবাই নক্ষত্র। চন্দ্রের ২৭টি নক্ষত্র-স্ত্রীর মধ্যে অশ্বিনী ছিলেন প্রথম।
২. অশ্বিনী কুমারের অপর নাম।


অশ্বিনীকুমার
অশ্বিনী (অশ্ব রূপিণী সূর্যপত্নী সংজ্ঞা) এবং তাঁর কুমার (পুত্র)। এই অর্থে অশ্বিনীকুমার।
স্বর্গের চিকিৎসক। এঁর পিতার নাম সূর্য ও মাতার নাম সংজ্ঞা।

সংজ্ঞা সূর্যের অসহ্য তেজ সহ্য করতে না পেরে, সূর্যকে দেখলে চোখ নামিয়ে ফেলতেন। এই জন্য সূর্য ক্রুদ্ধ হয়ে অভিশাপ দেন যে, সংজ্ঞা তাঁর চক্ষু সংযমন করার জন্য প্রজাদের সংযমনকারী যম-কে প্রসব করবেন। এরপর এই অভিশাপের সূত্র সংজ্ঞা মৃত্যু দেবতা যমকে প্রসব করেন। এরপর তিনি অত্যন্ত ভীতা হয়ে চপলভাবে সূর্যের দিকে দৃষ্টিপাত করতে লাগলেন। তাঁর এই চপল চক্ষু দেখে সূর্য বললেন যে, তিনি চঞ্চলস্বভাবা একটি নদী প্রসব করার অভিশাপ দেন। এই অভিশাপের সূত্রে সংজ্ঞা, যমী নামক কন্যার জন্ম দেন। এই কন্যা যমুনা নামে প্রবাহিত হয়। এই কারণে যমী'কে অনেক সময় যমুনা বলা হয়।

যম ও যমী (যমুনা) জন্মের পর, স্বামীর রূপ ও ক্রোধ থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য, ইনি নিজের অনুরূপ ছায়া নামক এক নারীকে সৃষ্টি করেন। এরপর সূর্য ও নিজের পুত্র-কন্যার পরিচর্যার ভার ছায়ার উপর অর্পণ করে, পিতৃগৃহে যান। কিন্তু সংজ্ঞার পিতা বিশ্বকর্মা অসন্তুষ্ট হয়ে কন্যাকে সূর্যের কাছে ফিরে যেতে বলেন। এরপর ইনি স্বামীর কাছে না গিয়ে উত্তর কুরুবর্ষে ঘোটকীর রূপ ধারণ করে ভ্রমণ করতে থাকেন।

ছায়া নিজের সন্তানদের মত সংজ্ঞার সন্তানদের প্রতিপালন করতেন না। এতে যম একদিন ক্রুদ্ধ হয়ে ছায়াকে পদাঘাত করতে উদ্যত হয়েও পরমুহূর্তেই যম ছায়ার কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করেন। কিন্তু ছায়া ক্ষমা না করে যমকে অভিশাপ দিলেন যে, তাঁর পা খসে যাবে। যম পিতার কাছে গিয়ে বিমাতার এই ব্যবহারের কথা বলেন। সুর্য নিজ পুত্র যমকে অভিশাপ থেকে মুক্ত না করে বলেন যে, তাঁর পায়ের মাংস নিয়ে কৃমিরা মাটিতে প্রবেশ করবে। এরপর যম, সংজ্ঞা যে তাঁর আপন মা নয়― সে কথা সূর্যকে জানালেন। সমস্ত বিবরণ গোপন রেখে ছলনা করবার জন্য সূর্য ছায়াকে অভিশাপ দিতে উদ্যত হলে, ছায়া সমস্ত কথা স্বীকার করে, সংজ্ঞার পিতৃগৃহে গমনের সমস্ত সংবাদ সূর্যকে বলে দেন।

এরপর সূর্য বিশ্বকর্মা'র কাছে গিয়ে, তাঁর স্ত্রীর (সংজ্ঞা) গৃহত্যাগের কারণ জানতে পারেন। এরপর সূর্য সমাধিস্থ হয়ে সংজ্ঞার অবস্থান এবং অশ্বীরূপ সম্পর্কে জানতে পারলেন। এরপর সূর্য বিশ্বকর্মা'র কাছে গিয়ে নিজের তেজ কমিয়ে অশ্বরূপ ধারণ করে ঘোটকীরূপিণী সংজ্ঞার সাথে মিলিত হলেন। এই মিলনের ফলে প্রথমে যুগল দেবতা অশ্বিনীকুমারদ্বয় ও পরে রেবন্তের জন্ম হয়।

―মার্কেণ্ডেয় পুরাণ, বৈবস্বত ও সাবর্ণির উপখ্যান।

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনীতে এরা অশ্বিনীকুমারদ্বয় নামে খ্যাত। পরবর্তী সময়ে এরা চিকিৎসাবিদ্যায় সুপণ্ডিত হয়ে উঠলে– স্বর্গবৈদ্য উপাধিতে ভূষিত হন। চিকিৎসা বিষয়ক এদের রচিত গ্রন্থের নাম হলো চিকিৎসা-সার-তত্ত্ব।

এরা দেখতে একইরকম ছিলেন এবং সবসময় এক সাথেই থাকতেন। অত্যন্ত রূপবান হিসাবে এঁরা খ্যাতি লাভ করেছিলেন। পাণ্ডুপত্নী মাদ্রী ক্ষেত্রজ সন্তান লাভের জন্য কুন্তীর শেখানো মন্ত্রের সাহায্যে এই দুই ভাইকে আহ্বান করেছিলেন। উভয় দেবতার সাথে মিলিত হয়ে মাদ্রী দুটি সন্তান লাভ করেছিলেন। এই সন্তানদ্বয় হলো– নকুল ও সহদেব।

এঁরা একটি সুবর্ণ রথে দিনে তিনবার ও রাতে তিনবার পৃথিবী পরিভ্রমণ করেন। আশ্বিনীকুমারদ্বয় সম্পর্কে বেশ মতভেদ রয়েছে। যেমন–
১. নিরুক্তকার যস্কের মতে : চন্দ্র ও সূর্য।
২. বেদের মতে : পৃথিবী ও স্বর্গ, দিবা ও রাত্রি, সূর্য ও চন্দ্র, বিবস্বান ও কারণ্যুর পুত্র, আকাশের পুত্র, সিন্ধুগর্ভ সম্ভূত, দক্ষ সম্ভূত ইত্যাদি।

এঁর অপরাপর নাম : অব্দিজ, অরুণাত্মজ, অর্কতনয়, অর্কনন্দন, অর্কপুত্র, অর্কসূত, অর্কসূনু, অশ্বিনীকুমার, অশ্বিনীপুত্র, অশ্বিনীসূত, অশ্বিনীসূত।


অশ্বী
হিন্দু পৌরাণিক চরিত্র। ঋগ্বেদের মতে– ত্বষ্টার দুটি যমজ সন্তান ছিল। এর একটি ছিল কন্যা, অপরটি ছিল পুত্র। কন্যার নাম ছিল সরণ্যু এবং পুত্রের নাম ছিল ত্রিশিরা। বিবস্বানের সাথে সরণ্যুর বিবাহ হয়েছিল। এঁদের যম এবং যমী নামে যমজ পুত্র-কন্যা জন্মেছিল।

সরণ্যু বিবস্বানের তেজ সহ্য করতে না পেরে, নিজের মত করে একটি নারী সৃষ্টি করে স্বামীর কাছে উক্ত সন্তানদ্বয় রেখে– অশ্বিনীর (ঘোটকী) রূপ ধারণ করে ভ্রমণ করতে থাকেন। বিবস্বান উক্ত নারীকে স্ত্রী ভেবে তাঁর সাথে মিলিত হন। ফলে উক্ত নারীর গর্ভে মনু নামক একটি তেজস্বী সন্তান জন্মগ্রহণ করে। বিবস্বান পরে সরণ্যুর পলায়ন বৃত্তান্ত জানতে পেরে– ঘোড়ার রূপ ধরে অশ্বিনীরূপী সরণ্যুর সাথে মিলিত হন। এর ফলে দুটি কুমারের জন্ম হয়। এঁদের একজনের নাম নাসত্য ও অপরের নাম দস্র। অশ্বীদ্বয় নামে এঁদের স্তব করা হয়।


অসমঞ্জ

হিন্দু পৌরাণিক চরিত্র। এর অপর নাম অংশুধর।
সগর রাজার জ্যেষ্ঠ পুত্র। এঁর মায়ের নাম কেশিনী। সগর রাজার দুটি স্ত্রী ছিল। সগরের অপর স্ত্রীর নাম ছিল সুমতি। একবার সগর পুত্র পাওয়ার আশায় দুই পত্নীকে সাথে নিয়ে হিমালয়ে তপস্যা করেন। এরপর ভৃগুর বরে সুমতির গর্ভে অসমঞ্জ ও কেশিনীর গর্ভে ষাট হাজার পুত্র জন্মে। অসমঞ্জ যৌবনের প্রারম্ভে দুর্দান্ত ছিলেন। এজন্য এঁর পিতা এঁকে রাজ্য থেকে নির্বাসিত করেন। সগরের যজ্ঞের জন্য নির্বাচিত অশ্ব অন্বেষণের জন্য তাঁর ষাট হাজার পুত্র যখন কপিলমুনির ক্রোধে ভস্মীভূত হয়, তখন অসমঞ্জের পুত্র অংশুমান কপিলমুনিকে সন্তুষ্ট করে যজ্ঞের অশ্ব ফিরিয়ে আনেন।



অসিক্লী


হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– ইনি ছিলেন প্রজাপতি বীরণের কন্যা । পিতার নামানুসারে এঁর অপর নাম বৈরণী। ইনি দক্ষের স্ত্রী ছিলেন। দক্ষের ইচ্ছা পূরণের নিমিত্তে এঁরই গর্ভে মহামায়া জন্মগ্রহণ করেছিলেন। পৌরাণিক কাহিনিতে এই কন্যা সতী নামে খ্যাত।


অসিত

১. সূর্যবংশীয় ভরতের পুত্র।
২. জনৈক মুনি। ইনি অসিতদেবল নামে সর্বাধিক পরিচিত।


অসিতদেবল

হিন্দু পৌরাণিক কাহিনি মতে– ইনি সরস্বতী নদীর তীরে আদিত্যতীর্থে বসবাস করতেন। ইনি ছিলেন গার্হস্থ্য-ধর্মী তপস্বী। একবার ভিক্ষু জৈগীষব্য মুনি দেবলের আশ্রমে এসে যোগনিরত অবস্থায় বাস শুরু করেন। ইনি সারাদিন লোকচক্ষুর অন্তরালে থেকে শুধুমাত্র খাওয়ার সময় হাজির হতেন। ফলে অসিতদেবলের সাথে তাঁর বিশেষ পরিচয় ঘটার সুযোগ হলো না। একদিন অসিতদেবল খাবারের সময়ও এই তপস্বীকে দেখতে না পেয়ে, একটি কলস নিয়ে আকাশপথে মহাসমুদ্রে এসে দেখলেন– তপস্বী সেখানে উপস্থিত আছেন। ইনি তাঁর ধ্যানে বিঘ্ন না ঘটিয়ে আশ্রমে ফিরে এসে দেখলেন তপস্বী তাঁর আগেই আশ্রমে ফিরে এসেছেন। এরপর কৌতুহলবশত ইনি অন্তরীক্ষ, পিতৃলোক, যমলোক, সূর্যলোক ইত্যাদি পরিভ্রমণ করে, প্রত্যেক স্থানে তপস্বীকে দেখতে পেলেন। অবশেষ এই তপস্বী ব্রহ্মলোকে এসে হারিয়ে গেলেন। অসিতদেবল তাঁর অল্প তপস্যার কারণে সেখানে প্রবেশ করতে পারলেন না। এরপর ইনি আশ্রমে ফিরে এসে তাঁর কাছে মোক্ষধর্ম গ্রহণ করে সিদ্ধি লাভ করেন। ইনি অসিত, অসিতদেবল ও দেবল এই তিন নামে খ্যাত ছিলেন। তাঁর স্ত্রী ছিলেন– হিমালয় কন্যা একপর্ণা।


অসিতলোমা
দানব বিশেষ। কশ্যপ মুনির ঔরসে ও দনুর গর্ভে এঁর জন্ম হয়েছিল। মহিষাসুরের সাথে দুর্গাদেবীর যুদ্ধের সময় অসিতলোমা দুর্গার বিরুদ্ধে যুদ্ধে অবতীর্ণ হয়েছিলেন। যুদ্ধে ব্রহ্মার বরে ইনি দুর্গার বিরুদ্ধে জয়ী হন। পরে ইনি বরুণের সাথে যুদ্ধে অবর্তীর্ণ হয়ে তাঁকেও পরাজিত করেন। এরপর ইনি সকল দেবতাদের বিরুদ্ধে যুদ্ধের প্রস্তুতি গ্রহণ করলে, দেবতারা মহাদেবের শরণাপন্ন হন। মহাদেব সকল দেবতাদের সাথে করে বিষ্ণুর কাছে যান। বিষ্ণু এই দানবকে বিনাশ করার জন্য তাঁর শরীর থেকে অষ্টাভূজা মহালক্ষ্মীর সৃষ্টি করেন। এই মহালক্ষ্মীর হাতে অসিতলোমা নিহত হন।
















Share this article :
 
Support : Creating Website | Johny Template | Mas Template
Copyright © 2011. সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতি - All Rights Reserved
Template Created by Creating Website Published by Mas Template
Proudly powered by Blogger