সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতিতে আপনাদের স্বাগতম। সনাতন ধর্মের বিশাল জ্ঞান ভান্ডারের কিছুটা আপনাদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র । আশাকরি ভগবানের কৃপায় আপনাদের ভালো লাগবে । আমাদের ফেসবুক পেজটিকে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন। জয় শ্রীকৃষ্ণ ।।

রামায়ণ কথা ( লঙ্কাকাণ্ড পর্ব- ৪৪ )


বৃহৎ ধর্ম পুরাণে আছে কুম্ভকর্ণের জাগরিত হওয়ার পর পিতামহ ব্রহ্মা দেবীর বোধন করেছিলেন । দেবতারা তখন প্রজাপতিকে বললেন- “হে ব্রহ্মণ ! আপনি মত প্রদান করুন । আমরা শ্রীরামের বিজয়ের নিমিত্ত স্বস্ত্যয়ন করবো ।” প্রজাপতি ব্রহ্মা দেখলেন যে কৃষ্ণ পক্ষের আর অল্পই অবশিষ্ট। অতএব শুক্লপক্ষ শুরু হবে খুব নিকটেই । মহালয়ার অমাবস্যাতে কৃষ্ণ পক্ষ সমাপ্ত। পিতৃপক্ষ সমাপ্ত হয়ে দেবীপক্ষ আরম্ভ হয় । এইসময় রাবণ দেবীর কৃপা পেলে তাঁহাকে বধ করা যাবে না । ব্রহ্মা বললেন- “শুন দেবতা গণ ! এই সময় শ্রীরামের রাবনজয়ের জন্য আমাদের স্বস্ত্যয়ন করা উচিৎ । কিন্তু ভগবতীর বোধন ছাড়া এই স্বস্ত্যয়ন করে লাভ নেই। সুতরাং পূর্বে দেবীর বোধন করা উচিৎ । এই বলে প্রজাপতি দেবতাদের নিয়ে ভগবতী মহামায়ার স্তব করতে লাগলেন- “ হে পরমা তোমাকে প্রণাম জানাই। তুমি কমলনয়না , শাম্ভবী, শঙ্করী , ত্রিলোচনা বরদা কালিকা । হে আদিশক্তি তুমি ভক্তিপ্রিয়া, ভক্তিস্বরূপা , ভবানী। তুমিই ভীমা আবার তুমিই ভীমাননা । হে দেবী, তুমি বৈষ্ণবীশক্তি , তুমি সৃষ্টি- স্থিতি- প্রলয় করো। তোমাকে প্রণাম । তুমি মৌলিভূমি, চন্দ্রকলা শোভিতা , তুমি শ্যামা, গৌরী , বিচিত্রা, শ্বেতা , সুন্দরী। তুমিই দেবতাদের শক্তি , শক্তিধারিনী, দ্বিভুজা , ষড় ভুজা , কৌমারী রূপিনী। তুমিই কালরূপা, দশভুজা , লক্ষ সুলোচনা, অষ্টাদশভুজা আবার ষোড়শভুজা। হে দেবী তুমি কোটিরশ্মিতে আবৃতা। তুমি সূক্ষ্মা , শুদ্ধা, স্থূলা, খর্বা , দীর্ঘ জিহ্বা , অপ্রমেয়া, কামরূপিনী যন্ত্ররূপা । সকলে তোমাকেই স্তব করে । তুমি সর্ব স্থানে বিরাজিতা । তোমার জঠরে অনন্ত কোটি ব্রহ্মাণ্ড বিরাজ করে। তুমি দুর্গতি নাশিনী দুর্গা , হরা । তুমিই শিবের বক্ষে অবস্থিতা । কমল লোচনা, শান্তা, কমলবাসিনী, পদ্মালয়া তোমাকে প্রণাম করি । তুমি স্বাহা তুমিই লজ্জা, তুমিই স্বধা তুমিই ত্রিগুণা।” ( বৃহৎ ধর্ম পুরাণ- পূর্ব খণ্ড – একবিংশোধ্যায় ) দেবতাদের স্তব শ্রবণ করে ভগবতী মহামায়া তখন আবির্ভূতা হলেন কুমারী রূপে। 


দেবী কুমারী বললেন- “দেবতাগণ! আমি তোমাদের স্তবে সন্তুষ্ট । আগামীকাল তোমরা বিল্ব বৃক্ষ তলে সেই ভগবতীর বোধন করবে । সেই সময় দেবী বোধিত হইবেন । বিল্ব বৃক্ষ তলে দেবীর পূজা করার পর শিবের পূজা করবে । তোমাদের এবং মহাত্মা রামের কার্যসিদ্ধি হবে।” পর দিন ব্রহ্মা ও দেবতাবৃন্দ মিলে সমগ্র বিশ্ব ভ্রমণ করতে করতে একস্থান দেখলেন বিল্ব বৃক্ষ তলে বিল্ব পত্রের মধ্যে ক্ষুদ্র একটি বালিকা নিদ্রামগ্ন হয়ে আছে । তিঁনি তপ্ত কাঞ্চন বর্ণা , বিম্বোষ্ঠী, সুচারু নব মাল্যে ভূষিতা । সেই দেবীই ভগবতী অম্বিকা। তখন ব্রহ্মাদি দেবতাগণ করজোড়ে স্তব আরম্ভ করলেন –

জানে দেবীমীদৃশীং ত্বাং মহেশীং
ক্রীড়াস্থানে স্বাগতাং ভূতেলহস্মিন্ ।
শত্রুস্তং বৈ মিত্ররূপা চ দুর্গা
দুর্গম্যা ত্বং যোগিনামন্তরেহপি ।।

অর্থাৎ- ব্রহ্মা কহিলেন – হে দেবী , হে মহেশ্বরী আমি জানিয়াছি তুমি ক্রীড়াচ্ছলে ভূতলে এইস্থানে শুভাগমন করিয়াছ । দুর্গে ! তুমি শত্রুরূপাও বটে , মিত্ররূপাও বটে; তুমি যোগীগণের অন্তরেও দুর্লভা ।

একানেকা সূক্ষ্মরূপাবিকারা
ব্রহ্মাণ্ডানি কোটিকোটীঃ প্রসূষে ।
কোহহং বিষ্ণুঃ কোহপরো বা শিবোখ্যা
দেবাশ্চানো স্তোতুমীশা ভবেম ।।

অর্থাৎ- তুমি একা, তুমি অনেকা, তুমি সূক্ষ্মরূপা অবিকারা ; তুমি কোটি কোটি ব্রহ্মাণ্ড প্রসবিনী, আমি কি, , বিষ্ণু কি , শিব কি, অনান্য দেবতাগণই বা কি - আপনার স্তবে কেহ সমর্থ নহে ।

ত্বং বৈ স্বাহা ত্বং স্বধা ত্বঞ্চ বৌষট্
ত্বঞ্চোঙ্কারস্তঞ্চ লজ্জাদিবীজম্ ।
ত্বং বৈ স্ত্রী চ ত্বং পুমান্ সর্বরূপা
ত্বাং সংনত্বা বোধয়ে নঃ প্রসীদ ।।

অর্থাৎ- আপনি স্বাহা , স্বধা , বৌষট্ ; আপনি প্রনব এবং হ্রী প্রভৃতি বীজ । আপনি স্ত্রী , আপনি পুরুষ ( অধিক কি) আপনিই সর্বস্বরূপা ; আপনাকে প্রনাম করিয়া বোধিত করিতেছি , আমাদের প্রতি প্রসন্না হন ।

ত্বং বৈ বর্ষো দেবতা কালরূপ ।
ত্বং বৈ মাসস্তং ঋতুশ্চায়নে দ্বে ।
কব্যং ভূঙ্খে ত্বং যথা বৈ স্বধাখ্যা
তদ্বৎ স্বাহা হব্যভোক্তস্ব দেবি ।।

অর্থাৎ- হে মাতঃ ! আপনিই কালরূপা দেবতা, আপনিই বর্ষ, মাস, অয়নদ্বয় ; হে দেবি! আপনি স্বধারূপে যেমন কব্য ভোজোন করেন, তেমনিই স্বাহারূপে হব্য ভোজোন করিয়া থাকেন ।

ত্বং বৈ দেবাঃ শুক্লপক্ষেষূ পূজ্যা-
স্তং পিত্রাদ্যাঃ কৃষ্ণপক্ষে প্রপূজ্যাঃ ।
ত্বং বৈ সত্যং নিস্প্রপঞ্চস্বরূপাং
ত্বাং নত্বাহং বোধয়ে নঃ প্রসীদ ।।

অর্থাৎ- আপনিই শুক্লপক্ষে পূজ্য দেবগণ , আবার আপনিই কৃষ্ণপক্ষে পূজনীয় পিতৃগণ । আপনিই নিস্প্রপঞ্চ সত্যস্বরূপ ; আপনাকে প্রনাম করিয়া বোধিত করিতেছি , আপনি আমাদিগের প্রতি প্রসন্ন হোন ।

দ্বারেণার্কেণায়নে ত্বাদ্যাকে ত্বাং
মুক্তিং যান্তিং ত্বৎপদধ্যানযোগাৎ ।
চন্দ্রদ্বারেণায়নে তু দ্বিতীয়ে
ত্বাং বৈ মুক্তিং যান্ত্যমী দেবি সূক্ষ্মম ।।

অর্থাৎ- আপনার চরণাবিন্দধ্যানযোগী জন উত্তরায়ণে সূর্য দ্বারা মুক্তিরূপিনী আপানকেই প্রাপ্ত করেন । আর দক্ষিণায়নে সূক্ষ্মা মুক্তিস্বরূপা আপনাকে চন্দ্র দ্বারা লাভ করেন ।

উচ্চৈর্ণীচং নীমুচ্চৈশ্চ কর্তুং
চন্দ্রঞ্চার্কং ত্বং বিধাতুং সমর্থা ।
তত্রাকালে শক্তিরূপা ভব ত্বং
ত্বাং নত্বাহং বোধয়ে তৎ প্রসীদ ।।

অর্থাৎ- উচ্চকে নীচ করিতে এবং নীচকে উচ্চ করিতে , চন্দ্রকে সূর্য করিতে বা সূর্যকে চন্দ্র করিতে আপনিই সমর্থা , এখন অকালে শক্তিরূপা হন । আপনাকে নমস্কার করিয়া বোধিত করি , অতএব প্রসন্না হউন ।

ত্বং বৈ শক্তী রাবণে রাঘবে বা
রুদ্রেন্দ্রাদৌ ময্যপীহান্তি যা চ ।
সা ত্বং শুদ্ধা রামমেকং পবর্ত্ত
তৎ ত্বাং দেবীং বোধয়ে নঃ প্রসীদ ।।

অর্থাৎ- রাম, রাবণ, রুদ্র, ইন্দ্র এবং অস্মদাদি ব্যক্তিতে যে যে শক্তি বর্তমান, সে সবই আপনি । সেই সর্বশক্তি রূপিনী আপনি সমষ্টিরূপে একমাত্র রামেতেই প্রবৃত্ত হউন, হে দেবি ! সেই জন্যই আপনাকে বোধিত করিতেছি , আমাদের প্রতি প্রসন্ন হউন । ( বৃহদ্ধর্মপুরাণ – পূর্ব খন্ড- দ্বাবিংশোহধ্যায়ঃ )

যেহেতু শ্রাবন থেকে পৌষ হল- দক্ষিণায়ন । এসময় দেবতারা নিদ্রিত থাকেন । তাই ব্রহ্মা বললেন-

ঐ রাবণস্য বধ্যার্থায় রামস্যানুগ্রহায় চ ।
অকালে তু শিবে বোধস্তব দেব্যাঃ কৃতো ময়া ।।
( বৃহদ্ধর্মপুরাণ – পূর্ব খন্ড- দ্বাবিংশোহধ্যায়ঃ )

এর অর্থ- রাবণ বধের জন্য এবং রামের প্রতি অনুগ্রহ করিবার জন্য – হে দেবী ! শিবে ! অকালে আমি তোমার বোধন করিতেছি ।

আজও সঙ্কল্পে এই মন্ত্র পাঠ হয় শারদীয়া দুর্গা পূজায় । দেবী অভয়া দুর্গা নানা ভাবে অসুর নিধন করেছেন। দুর্গা পূজা মহাশক্তির আরাধনা । সেই দশভুজা দুর্গা দেবী বললেন- “ শুক্লা সপ্তমী তিথিতে আমি শ্রীরামের শরে প্রবেশ করবো । শুক্লা অষ্টমী তিথিতে রামচন্দ্র ও রাবণের ঘোর যুদ্ধ হবে। শুক্লা নবমী তিথিতে শ্রীরামের বাণে বারবার রাবনের মস্তক ছিন্ন হয়ে ভূমিতে পড়েও জোড়া লাগিবে । অবশেষে শুক্লা নবমী তিথি অপরাহ্ণে রাবণ বধ হবে। শুক্লা দশমী তিথিতে শ্রীরাম বিজয় উৎসব করবেন।” ঐ দুর্গা পূজার তিথি কিভাবে কাটাবেন সে সম্বন্ধে উল্লেখ আছে উক্ত পুরাণে। চার বর্ণের মানব একত্রে দেবীর পূজা করবেন। হিংসা দ্বেষ কলহ দম্ভ ত্যাগ করে মহামায়ার ভক্তি করবেন । দীক্ষিতেরা জপের পরিমাণ বৃদ্ধি করবেন। দান- ধ্যান শুভ কর্ম করবেন। দেবীর প্রসাদ গ্রহণ করবেন । বিষয় চিন্তা, কুবুদ্ধি ত্যাগ করে শুদ্ধ ভাবে কাটাবেন । এবং সন্ধি পূজার সময় দেবীর সম্মুখে গুরু প্রদত্ত বীজ মন্ত্র জপ করবেন । বৈষ্ণব, শৈব, শাক্ত সব মতের মানুষ দের এক নিয়ম। মা দুর্গা বিষ্ণু ভক্তি প্রদান করেন। অতএব কৃষ্ণ উপাসক দের ওপর থেকে তিনি মোহজাল উন্মোচন করে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের কাছে পৌছাবার পথ উন্মুক্ত করবেন । সুতরাং তুলসীমাল্য, রুদ্রাক্ষে যাতেই জপ করুন না কেন- ঐ সময় পরিমাণ বৃদ্ধি করবেন । এই সব না করে যারা অশাস্ত্রীয় ভাবে ঐ পূজার সময় দিন যাপন করবে- তারা ঘোর নরকে যাবে বলে উক্ত পুরাণে লেখা ।

( ক্রমশঃ ) 
Share this article :
 
Support : Creating Website | Johny Template | Mas Template
Copyright © 2011. সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতি - All Rights Reserved
Template Created by Creating Website Published by Mas Template
Proudly powered by Blogger