সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতিতে আপনাদের স্বাগতম। সনাতন ধর্মের বিশাল জ্ঞান ভান্ডারের কিছুটা আপনাদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র । আশাকরি ভগবানের কৃপায় আপনাদের ভালো লাগবে । আমাদের ফেসবুক পেজটিকে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন। জয় শ্রীকৃষ্ণ ।।

পরমেশ্বর ভগবানও শ্রীকৃষ্ণ


শ্রীকৃষ্ণ ও পরমেশ্বর ভগবান হচ্ছেন অভিন্ন। তাই সমগ্র ভগবদ্ গীতায় তাঁকে ভগবান বলে সম্বোধন করা হয়েছে। ভগবান হচ্ছেন পরমতত্ত্বের চরম সীমা। পরমতত্ত্ব উপলব্ধির তিনটি স্তর রয়েছে।
১) ব্রক্ষ অর্থাৎ নির্বিশেষ সর্বব্যাপ্ত সত্তা।
২) পরমাত্মা অর্থাৎ প্রতিটি জীবের হৃদয়ে বিরাজমান পরমেশ্বরের প্রকাশ।
৩) ভগবান অর্থাৎ পরমেশ্বর ভগবান শ্রীকৃষ্ণ।
পরমতত্ত্বের এই বিশ্লেষণ সম্বন্ধে শ্রীমদ্ভগবতে (১-২-১১) বলা হয়েছে -
যা অদ্বয় জ্ঞান, অর্থাৎ এক অদ্বিতীয় বাস্তব বস্তু, জ্ঞানীরা তাকেই পরমার্থ বলেন। সেই পরমতত্ত্ব ব্রক্ষ, পরমাত্মা ও ভগবান-- এই ত্রিবিধ সংজ্ঞায় অভিব্যক্ত হয়।
------------------------------------------
এই তিনটি চিন্ময় প্রকাশ সূর্যের দৃষ্টান্তের মাধ্যমে বিশ্লেষণ করা যায়। সূর্যের ও তিনটি প্রকাশ রয়েছে, যেমন--
১) সূর্যরশ্মি।২) সূর্যগোলক। ৩) সূর্যমণ্ডল
১) সূর্যরশ্মি জানাটা হচ্ছে প্রাথমিক স্তর।
২) সূর্যগোলক সম্বন্ধে জানাটা আরও উচ্চতর স্তর।
৩) সূর্যমণ্ডলে প্রবেশ করে সূর্য সম্বন্ধে জানাটা হচ্ছে সর্বোচ্চ স্তর। প্রাথমিক স্তরের শিক্ষার্থীরা সূর্যকিরণ সম্বন্ধে জেনেই সন্তুষ্ট থাকে- তার সর্বব্যাপকতা এবং তার নির্বিশেষ রশ্মিছটা সম্বন্ধে যে জ্ঞান,তাকে পরমতত্ত্বের ব্রক্ষ উপলব্ধির সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে এবং যাঁরা সূর্যমণ্ডলেরর অন্তঃস্থলে প্রবিষ্ট হয়েছেন, তাঁদের জ্ঞান পরম-তত্ত্বের সর্বোত্তম সবিশেষ রূপ সম্বন্ধে অবগত হওয়ার সঙ্গে তুলনা করা যেতে পারে। তাই ভগবদ্ভক্তবৃন্দ অথবা যে সমস্ত পরমার্থবাদীরা পরমতত্ত্বের ভগবৎ-স্বরূপ উপলব্ধি করতে পেরেছেন, তাঁরাই হচ্ছেন সর্বোচ্চ পরমার্থবাদী, যদি ও সমস্ত পরমার্থবাদীরা সেই একই পরমতত্ত্বের অনুসন্ধানে রত।
সূর্যরশ্মি, সূর্যগোলক ও সূর্যমণ্ডল এই তিনটি একে অপর থেকে পৃথক হতে পারে না, কিন্তু তবুও তিনটি স্তরের অন্বেষণকারীরা সমপর্যায়ভুক্ত নন।
------------------------------------------
শ্রীল ব্যাসদেবের পিতা পরাশর মুনি ভগবান কথাটির বিশ্লেষণ করেছেন। সমগ্র ঐশ্বর্য, সমগ্র বীর্য, সমগ্র যশ, সমগ্র শ্রী, সমগ্র জ্ঞান ও সমগ্র বৈরাগ্য যাঁর মধ্যে পূর্নরূপে বর্তমান সেই পরম পুরুষ হচ্ছেন ভগবান।
কোন জীবই, এমন কি ব্রক্ষা, শিব, ণারায়ন ও শ্রীকৃষ্ণের মতো পূর্ণ ঐশ্বর্যসম্পন্ন হতে পারে না। তাই ব্রক্ষসংহিতাতে ব্রক্ষা নিজে বলেছেন যে, শ্রীকৃষ্ণই হচ্ছেন পরমেশ্বর ভগবান। তিনি হচ্ছেন আদি পুরুষ, অথবা গৌবিন্দ নামে পরিজ্ঞাত ভগবান এবং তিনি সর্ব। কারণের পরম কারণ।
"ভগবতেও পরমেশ্বরের অনেক অবতারের বর্ণনা আছে। সমস্ত অবতারেরা হচ্ছেন ভগবানের অংশ অথবা তাঁর অংশের অংশ-প্রকাশ,কিন্তু শ্রীকৃষ্ণ হচ্ছেন স্বয়ং ভগবান।
(ভাগবত ১-৩২৮)

Written by: Rajib Ghosh
Share this article :
 
Support : Creating Website | Johny Template | Mas Template
Copyright © 2011. সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতি - All Rights Reserved
Template Created by Creating Website Published by Mas Template
Proudly powered by Blogger