সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতিতে আপনাদের স্বাগতম। সনাতন ধর্মের বিশাল জ্ঞান ভান্ডারের কিছুটা আপনাদের কাছে তুলে ধরার চেষ্টা করছি মাত্র । আশাকরি ভগবানের কৃপায় আপনাদের ভালো লাগবে । আমাদের ফেসবুক পেজটিকে লাইক দিয়ে আমাদের সাথেই থাকুন। জয় শ্রীকৃষ্ণ ।।

চতুর্থ অধ্যায়ঃ জ্ঞানযোগ

                                       ওঁ নমো ভগবতে বাসুদেবায়

শ্রীভগবানুবাচ -

ইমং বিবস্বতে যোগং প্রোক্তবানহমব্যয়ম্।
বিবস্বান্ মনবে প্রাহ মনুরিক্ষ্বাকবেহব্রবীৎ।।১


অর্থঃ-(১) শ্রীভগবান্‌ বলিলেন - এই অব্যয় যোগ আমি সূর্য্যকে বলিয়াছিলাম। সূর্য্য (স্বপুত্র) মনুকে এবং মন্য (স্বপুত্র) ইক্ষ্বাকুকে ইহা বলিয়াছিলেন।

এবং পরম্পরাপ্রাপ্তমিমং রাজর্ষয়ো বিদুঃ।
স কালেনেহ মহতা যোগো নষ্টঃ পরন্তপ।।২


অর্থঃ-(২) এইরূপে পুরুষপরম্পরা প্রাপ্ত এই যোগ রাজর্ষিগণ বিদিত ছিলেন। হে পরন্তপ, ইহলোকে সেই যোগ দীর্ঘকালবশে নষ্ট হইয়াছে।


রাজর্ষি - রাজর্ষি হইয়াও যিনি ঋষি, যেমন জনকাদি। সুতরাং যাঁহারা জ্ঞানী ও কর্ম্মী, ইহা তাঁহাদেরই অধিগম্য।

স এবায়ং ময়া তেহদ্য যোগঃ প্রোক্তঃ পুরাতনঃ।
ভক্তোহসি মে সখা চেতি রহস্যং হ্যেতদুত্তমম্।।৩


অর্থঃ-(৩) তুমি আমার ভক্ত ও সখা, এই জন্য এই সেই পুরাতন যোগ অদ্য তোমাকে বলিলাম; কারণ, ইহা উত্তম গুহ্য তত্ত্ব।

অর্জ্জুন উবাচ -

অপরং ভবতো জন্ম পরং জন্ম বিবস্বতঃ।
কথমেতদ্বিজানীয়াং ত্বমাদৌ প্রোক্তবানিতি।।৪


অর্থঃ-(৪) অর্জ্জুন বলিলেন - আপনার জন্ম পরে, বিবস্বানের জন্ম পূর্ব্বে; সুতরাং আপনি যে পূর্ব্বে ইহা বলিয়াছিলেন, তাহা কিরূপে বুঝিব?

শ্রীভগবানুবাচ -

বহূনি মে ব্যতীতানি জন্মানি তব চার্জ্জুন।
তান্যহং বেদ সর্ব্বাণি ন ত্বং বেত্থ পরন্তপ।।৫


অর্থঃ-(৫) শ্রীভগবান্‌ বলিলেন - হে অর্জ্জুন! আমার এবং তোমার বহু জন্ম অতীত হইয়াছে। আমি সে সকল জানি; হে পরন্তপ! তুমি জান না।

অজোহপি সন্নব্যয়াত্মা ভূতানামীশ্বরোহপি সন্।
প্রকৃতিং স্যামধিষ্ঠায় সম্ভবাম্যাত্মমায়য়া।।৬


অর্থঃ-(৬) আমি জন্মরহিত, অবিনশ্বর এবং সর্ব্বভূতের ঈশ্বর হইয়াও স্বীয় প্রকৃতিতে অনুষ্ঠান করিয়া আত্মমায়ায় আবির্ভূত হই।

যদা যদাহি ধর্ম্মস্য গ্লানির্ভবতি ভারত।
অভ্যুত্থানমধর্ম্মস্য তদাত্মানং সৃজাম্যহম্।।৭


অর্থঃ-(৭) হে ভারত! যখনই যখনই ধর্ম্মের গ্লানি এবং অধর্ম্মের অভ্যুত্থান হয়, আমি সেই সেই সময়ে নিজেকে সৃষ্টি করি (দেহ ধারণপূর্ব্বক অবতীর্ণ হই)।

পরিত্রাণায় সাধূনাং বিনাশায় চ দুস্কৃতাম্।
ধর্ম্মসংস্থাপনার্থায় সম্ভবামি যুগে যুগে।।৮


অর্থঃ-(৮) সাধুগণের পরিত্রাণ, দুষ্টদিগের বিনাশ এবং ধর্ম্মসংস্থাপনের জন্য আমি যুগে যুগে অবতীর্ণ হই।


যুগে যুগে - তত্ত্বদবসরে, তত্তৎ সময়ে (শ্রীধর, বলরাম) যখনি ধর্ম্মের গ্লানি হয়, তখনই অবতার; এক যুগে একাধিক অবতারও হয়।

জন্মকর্ম্ম চ মে দিব্যমেবং যো বেত্তি তত্ত্বতঃ।
ত্যক্ত্বা দেহং পুনর্জ্জন্ম নৈতি মামেতি সোহর্জ্জুন।।৯


অর্থঃ-(৯) হে অর্জ্জুন, আমার এই দিব্য জন্ম ও কর্ম্ম যিনি তত্ত্বতঃ জানেন, তিনি দেহত্যাগ করিয়া পুনর্ব্বার আর জন্মপ্রাপ্ত হন না - তিনি আমাকেই প্রাপ্ত হন।

বীতরাগভয়ক্রোধা মন্ময়া মামুপাশ্রিতাঃ।
বহবো জ্ঞানতপসা পূতা মদ্ভাবমাগতাঃ।।১০


অর্থঃ-(১০) বিষয়ানুরাগ, ভয় ও ক্রোধ বর্জ্জন করিয়া, আমাতে একাগ্রচিত্ত ও আমার শরণাপন্ন হইয়া, আমার জন্মকর্ম্মের তত্ত্বালোচনা রূপ জ্ঞানময় তপস্যাদ্বারা পবিত্র হইয়া অনেকে আমার পরমানন্দভাবে চিরস্থিতি লাভ করিয়াছেন।

যে যথা মাং প্রপদ্যন্তে তাংস্তথৈব ভজাম্যহম্।
মম বর্ত্মানুবর্ত্তন্তে মনুষ্যাঃ পার্থ সর্ব্বশঃ।।১১


অর্থঃ-(১১) হে পার্থ! যে আমাকে যে-ভাবে উপাসনা করে, আমি তাহাকে সেই ভাবেই তুষ্ট করি। মনুষ্যগণ সর্ব্বপ্রকারে আমার পথেরই অনুসরণ করে অর্থাৎ মনুষ্যগণ যে পথই অনুসরণ করুক না কেন, সকল পথেই আমাতে পৌঁছিতে পারে।

কাঙ্ক্ষন্তঃ কর্ম্মণাং সিদ্ধিং যজন্ত ইহ দেবতাঃ।
ক্ষিপ্রং হি মানুষে লোকে সিদ্ধর্ভবতি কর্ম্মজা।।১২


অর্থঃ-(১২) ইহলোকে যাহারা কর্ম্মসিদ্ধি কামনা করে তাহারা দেবতা পূজা করে, কেননা মনুষ্যলোকে কর্ম্মজনিত ফললাভ শীঘ্রই পাওয়া যায়।

চাতুর্ব্বণ্যং ময়া সৃষ্টং গুণকর্ম্মবিভাগশঃ।
তস্য কর্ত্তারমপি মাং বিদ্ধ্যকর্ত্তারমব্যয়ম্।।১৩


অর্থঃ-(১৩) বর্ণচতুষ্টয় গুণ ও কর্ম্মের বিভাগ অনুসারে আমি করিয়াছি বটে, কিন্তু আমি উহার সৃষ্টিকর্ত্তা হইলেও আমাকে অকর্ত্তা ও বিকাররহিত বলিয়াই জানিও।


অব্যয় - অবিকারী (নীলকন্ঠ)। তিনি নির্গুণ হইয়াও সগুণ, ‘নির্গুণো-গুণী’। নির্গুণ বিভাবে তিনি নির্ব্বিশেষ নিষ্ক্রিয়; সগুণবিভাবে তিনি সৃষ্টিস্থিতিপ্রলয়কর্ত্তা। তাই তিনি কর্ত্তা হইয়াও অকর্ত্তা, ক্রিয়াশীল হইয়াও অবিকারী।


কেহ সকামভাবে রাজসিক বা তামসিক পূজার্চ্চনা করে, কেহ নিষ্কাম ভাবে উপাসনা করে। এরূপ কর্ম্ম-বৈচিত্র্য কেন? তুমিই ত এসব ঘটাও? - না, প্রকৃতিভেদবশতঃ এইরূপ হয়। প্রকৃতিভেদ অনুসারে বর্ণভেদ বা কর্ম্মভেদ আমি করিয়াছি - কিন্তু আমি উহার কর্ত্তা হইলেও উহাতে লিপ্ত হই না বলিয়া আমি অকর্ত্তা। জীবেরও এই তত্ত্ব জানিয়া নিষ্কামভাবে স্বধর্ম্ম পালন করা উচিত। মুমুক্ষু ব্যক্তিগণ পূর্ব্বে এই ভাবেই কর্ম করিযাছেন।

ন মাং কর্মাণি লিস্পন্তি ন মে কর্ম্মফলে স্পৃহা।
ইতি মাং যোহভিজানাতি কর্ম্মভির্ন স বধ্যতে।।১৪


অর্থঃ-(১৪) কর্ম্মসকল আমাকে লিপ্ত করিতে পারে না, কর্মফলে আমার স্পৃহাও নাই, এইরূপে যিনি আমাকে জানেন, তিনি কর্ম্মদ্বারা আবদ্ধ হন না।


শ্রীভগবান্‌ আদর্শ কর্মযোগী, তাঁহার নির্লিপ্ততা ও নিস্পৃহতা বুঝিতে পারিলে মনুষ্য নিষ্কাম কর্ম্মের মর্ম্ম বুঝিতে পারে, তাহার কর্ম নিষ্কাম হয়। সুতরাং কর্ম্ম করিয়াও সে কর্ম্মবন্ধন হইতে মুক্ত হয়।

এবং জ্ঞাত্বা কৃতং কর্ম্ম পূর্ব্বৈরপি মুমুক্ষুভিঃ।
কুরু কর্ম্মৈব তস্মাৎ ত্বং পূর্ব্বৈঃ পুর্ব্বতরং কৃতম্।।১৫


অর্থঃ-(১৫) এইরূপ জানিয়া (অর্থাৎ আত্মাকে অকর্ত্তা, অভোক্তা মনে করিয়া) পূর্ব্ববর্ত্তী মোক্ষাভিলাষিগণ অর্থাৎ পূর্ব্ববর্ত্তী জনকাদি রাজর্ষিগণ কর্ত্তৃত্বাভিমান বর্জ্জনপূর্ব্বক নির্লিপ্তভাবে স্বীয় কর্ত্তব্য কর্ম্ম সম্পাদন করিয়া গিয়াছেন, তুমিও সেইরূপ নিষ্কামভাবে স্বীয় কর্ত্তব্য পালন কর।

কিং কর্ম্ম কিমকর্ম্মেতি কবোয়হপ্যত্র মোহিতাঃ।
তত্তে কর্ম্ম প্রবক্ষ্যামি যজ্ জ্ঞাত্বা মোক্ষ্যসেহশুভাৎ।।১৬


অর্থঃ-(১৬) কর্ম্ম কি, কর্ম্মশূন্যতাই বা কি, এ বিষয়ে পণ্ডিতেরাও মোহ প্রাপ্ত হন অর্থাৎ ইহার প্রকৃত তত্ত্ব বুঝিতে পারেন না, অতএব কর্ম্ম কি, (এবং অকর্ম্ম কি) তাহা তোমাকে বলিতেছি, তাহা জানিলে অশুভ হইতে (সংসারবন্ধন হইতে) মুক্ত হইবে।


কর্ম্ম - বিহিত কর্ম্ম; বিকর্ম্ম - অবিহিত কর্ম্ম; অকর্ম্ম - কর্ম্মশূন্যতা; কর্ম্মত্যাগ, কিছু না করিয়া তুষ্ণীম্ভাবঅবলম্বন।

কর্ম্মণো হ্যপি বোদ্ধব্যং বোদ্ধব্যঞ্চ বিকর্ম্মণঃ।
অকর্ম্মণশ্চ বোদ্ধব্যং গহনা কর্ম্মণো গতিঃ।।১৭


অর্থঃ-(১৭) বিহিত কর্ম্মের বুঝিবার বিষয় আছে, বিকর্ম্ম বা অবিহিত কর্ম্মের বুঝিবার বিষয় আছে, অকর্ম্ম বা কর্ম্মত্যাগ সন্বন্ধেও বুঝিবার বিষয় আছে; কেননা কর্ম্মের গতি (তত্ত্ব) দুর্জ্ঞেয়।

কর্ম্মণ্যকর্ম্ম যঃ পশ্যেদকর্ম্মণি চ কর্ম্ম যঃ।
স বুদ্ধিমান্ মনুষ্যেষু স যুক্তঃ কৃতস্নকর্ম্মকৃৎ।।১৮


অর্থঃ-(১৮) যিনিকর্ম্মে অকর্ম্ম এবং অকর্ম্মে কর্ম্ম দেখেন মনুষ্যের মধ্যে তিনিই বুদ্ধিমান্‌; তিনি যোগী, তিনি সর্ব্বকর্ম্মকারী।
কর্ম্মতত্ত্বঃ যিনিকর্ম্মে অকর্ম্ম দর্শন করেন অর্থাৎ যিনি কর্ম্ম করিয়াও মনে করেন যে দেহেন্দ্রিয়াদি কর্ম্ম করিতেছে, আমি কিছুই করি না, তিনিই বুদ্ধিমান্‌, কেন না কর্ম্ম করিয়াও তিনি কর্ম্মের ফলভোগীহয়েন না। অর্থাৎ যিনি কর্ত্তৃত্বাভিমান ত্যাগ করিয়া কর্ম্ম করেন, তাঁহার কর্ম্মও অকর্ম্মস্বরূপ। - ইহাই কর্ম্মতত্ত্ব।


বিকর্ম্মতত্ত্বঃ কর্ম্ম করিয়াও তাহার ফলভোগী হয়েন না সুতরাং নির্লিপ্ত অনহঙ্কারী কর্ম্মযোগীর পক্ষে বিকর্ম্মও অকর্ম্মস্বরূপ - ইহাই বিকর্ম্মতত্ত্ব।


অকর্ম্মতত্ত্বঃ আর যিনি অকর্ম্মে কর্ম্ম দর্শন করেন, তিনিই বুদ্ধিমান্‌। অনেকে আলস্যহেতু, দুঃখবুদ্ধিতে কর্ত্তব্যকর্ম্ম ত্যাগ করেন, কিন্তু তাহারা জানেন না এ অবস্থায় প্রকৃতির ক্রিয়া চলিতে থাকে, কর্ম্মবন্ধ হয় না। এই যে কর্ম্মত্যাগ বা অকর্ম্ম ইহা প্রকৃতপক্ষে কর্ম্ম, কেননা ইহা বন্ধনের কারণ। আবার ইহারা কর্ম্ম ত্যাগ করিয়া মনে করেন, আমি কর্ম্ম করি না, আমি বন্ধনমুক্ত। কিন্তু “আমি কর্ম্ম করি” ইহা যেমন অভিমান, “আমি কর্ম্ম করি না” ইহাও সেইরূপ অভিমান, সুতরাং বন্ধনের কারণ। ইহারা বুঝেন না যে কর্ম্ম করে প্রকৃত, ‘আমি’ নহে। বস্তুতঃ‘আমি’ ত্যাগ না হইলে কেবল কর্ম্মত্যাগে বন্ধন-মুক্ত হওয়া যায় না। সুতরাং এইরূপ অকর্ম্ম বা কর্ম্মত্যাগও বন্ধনহেতু বলিয়া প্রকৃতপক্ষে কর্ম্মই - ইহাই অকর্ম্মতত্ত্ব।

যস্য সর্ব্বে সমারম্ভাঃ কামসংকল্পবর্জ্জিতাঃ।
জ্ঞানাগ্নিদগ্ধকর্ম্মাণং তমাহিঃ পণ্ডিতং বুধাঃ।।১৯


অর্থঃ-(১৯) যাঁহার সমস্ত কর্মচেষ্টা, ফলতৃষ্ণা ও কর্ত্তৃত্বাভিমানবর্জ্জিত, সুতরাং যাঁহার কর্ম্ম জ্ঞানরূপ অগ্নিদ্বারা দগ্ধ হইয়াছে, সেইরূপ ব্যক্তিকেই জ্ঞানিগণ পণ্ডিত বলিয়া থাকেন।


নিষ্কাম কর্ম্ম দিব্য কর্ম্ম, ভাগবৎ কর্ম্ম! ‘আমি করিতেছি’এইরূপ কর্ত্তৃত্বাভিমান যাঁহার নাই, তিনি কর্ম্ম করিয়াও তাহার ফলভাগী হন না। অহং-বুদ্ধিত্যাগই প্রকৃত জ্ঞান। এই জ্ঞানরূপ অগ্নিদ্বারা তাঁহার কর্ম্মের ফল দগ্ধ হইয়াছে, তাঁহার কর্ম্মের ফলভাগিত্ব বিনষ্ট হইয়াছে। এইরূপ ব্যক্তিই কর্ম্মে অকর্ম্ম অর্থাৎ কর্ম্মশূন্যতা দেখেন।


ত্যক্ত্বা কর্ম্মফলাসঙ্গং নিত্যতৃপ্তো নিরাশ্রয়ঃ।
কর্ম্মণ্যভিপ্রবৃত্তোহপি নৈব কিঞ্চিৎ করোতি সঃ।।২০


অর্থঃ-(২০) যিনি কর্ম্মে ও কর্ম্মভলে আসক্তি পরিত্যাগ করিয়াছেন, যিনি সদা আপনাতেই পরিতৃপ্ত, যিনি কোন প্রয়োজনে কাহারও আশ্রয় গ্রহণ করেন না, তিনি কর্ম্মে প্রবৃত্ত হইলেও কিছুই করেন না (অর্থাৎ তাঁহার কর্ম্ম অকর্ম্মে পরিণত হয়)।

নিরাশীর্যতচিত্তাত্মা ত্যক্তসর্ব্বপরিগ্রহঃ।
শারীরং কেবলং কর্ম্ম কুর্ব্বন্নাপ্নোতি কিল্বিষম্।।২১


অর্থঃ-(২১) যিনি কামনা ত্যাগ করিয়াছে, যাঁহার চিত্ত ও ইন্দ্রিয় সংযত, যিনি সর্ব্বপ্রকার দান-উপহারাদি গ্রহণ বর্জ্জন করিয়াছেন, তাদৃশ ব্যক্তি কেবল শরীরদ্বারা কর্ম্মানুষ্ঠান করিয়াও পাপভাগী হন না (কর্ম্মবন্ধনে আবদ্ধ হন না)।

যদৃচ্ছালাভসন্তুষ্টো দ্বন্দ্বাতীতো বিমৎসরঃ।
সমঃ সিদ্ধাবসিদ্ধৌচ কৃত্বাহপি ন নিবধ্যতে।।২২


অর্থঃ-(২২) যিনি প্রার্থনা ও বিশেষ চেষ্টা না করিয়া যাহা প্রাপ্ত হওয়া যায় তাহাতেই সন্তুষ্ট থাকেন, যিনি দ্বন্দ্বসহিষ্ণু, মাৎসর্য্যশূন্য সুতরাং বৈরবিহীন, যিনি সিদ্ধি ও অসিদ্ধি তুল্য জ্ঞান করেন, তিনি কর্ম্ম করিয়াও কর্ম্মফলে আবদ্ধ হয়েন না।

গতসঙ্গস্য মুক্তস্য জ্ঞানাবস্থিতচেতসঃ।
যজ্ঞায়াচরতঃ কর্ম্ম সমগ্রং প্রবিলীয়তে।।২৩


অর্থঃ-(২৩) যিনি ফলাকাঙ্খাবর্জ্জিত, রাগদ্বেষাদিমুক্ত, যাঁহার চিত্তআত্মবিষয়ক জ্ঞানে নিবিষ্ট বা জ্ঞানস্বরূপ ব্রহ্মে অবস্থিতি, যিনি যজ্ঞার্থ (অর্থাৎ ঈশ্বর-প্রীত্যর্থ যজ্ঞস্বরূপ) কর্ম করেন, তাঁহার কর্ম্মসকল ফলসহ বিনষ্ট হইয়া যায়, ঐ কর্ম্মের কোন সংস্কার থাকে না (অর্থাৎ তাহার কর্ম্ম বন্ধনের কারণ হয় না)।

ব্রহ্মার্পণং ব্রহ্ম হবির্ব্রহ্মাগ্নৌ বরহ্মণা হুতম্।
ব্রহ্মৈব তেন গন্তব্যং ব্রহ্মকর্ম্মসমাধিনা।।২৪


অর্থঃ-(২৪) যিনিকর্ম্মে ও কর্মের অঙ্গসকলে ব্রহ্মই দেখেন, তিনি ব্রহ্মত্বই প্রাপ্ত হন - ‘ব্রহ্মবিদ ব্রহ্মৈব ভবতি’।


অর্পণ (স্রুবাদি যজ্ঞপত্রে) ব্রহ্ম, ঘৃতাদি ব্রহ্ম, অগ্নি ব্রহ্ম, যিনি হোম করেন তিনিও ব্রহ্ম, এইরূপ জ্ঞানে ব্রহ্মরূপ কর্ম্মে একাগ্রচিত্ত পুরুষ ব্রহ্মই প্রাপ্ত হন।

দৈবমেবাপরে যজ্ঞং যোগিনঃ পর্য্যুপাসতে
ব্রহ্মাগ্নাবপরে যজ্ঞং যজ্ঞেনৈবোপজুহ্বতি।।২৫


অর্থঃ-(২৫) অন্য কোন কোন যোগিগণ দৈবযজ্ঞের অনুষ্টান করেন, অপর কেহ কেহ ব্রহ্মরূপ অগ্নিতে (পূর্ব্বোক্ত ব্রহ্মার্পণ রূপ) যজ্ঞদ্বারাই যজ্ঞার্পণ করেন (অর্থাৎ সর্ব্বকর্ম্ম ব্রহ্মে অর্পণ করেন।

শ্রোত্রাদীনীন্দ্রিয়াণ্যন্যে সংযমাগ্নিষু জুহ্বতি।
শব্দাদীন্ বিষয়ানন্য ইন্দ্রিয়াগ্নিষু জুহ্বতি।।২৬


অর্থঃ-(২৬) অন্যে সংযমরূপ অগ্নিতে চক্ষুকর্ণাদি ইন্দ্রিয়সমূহকে হোম করেন অর্থাৎ ইন্দ্রিয়গুলিকে রূপরসাদি বিষয় হইতে প্রত্যাহার করিয়া সংযতেন্দ্রিয় হইয়া অবস্থান করেন, ইহার নামসংযম-যজ্ঞ বা ব্রহ্মচর্য্য; অন্যে ইন্দ্রিয়রূপ অগ্নিতে শব্দাদি বিষয়সমূহকে আহুতি দেন - অর্থাৎ ইন্দ্রিয়সমূহ শব্দাদি বিষয় গ্রহণ করিতেছে, কিন্তু তিনি রাগদ্বেষশূন্যচিত্তে অনাসক্তভাবে থাকেন। মুমুক্ষু নির্লিপ্ত সংসারীরা এই যজ্ঞ করেন; ইহাকে বলা যায় ইন্দ্রিয়-যজ্ঞ।

সর্ব্বাণীন্দ্রিয়কর্মাণি প্রাণকর্ম্মাণি চাপরে।
আত্মসংযমযোগাগ্নৌ জুহ্বতি জ্ঞানদীপিতে।।২৭


অর্থঃ-(২৭) অন্য কেহ (ধ্যানযোগিগণ) সমস্ত ইন্দ্রিয়-কর্ম্ম ও সমস্ত প্রাণকর্ম্মকে ব্রহ্মজ্ঞানে প্রদ্দীপিত আত্মসংযম বা সমাধিরূপ যোগাগ্নিতে হোম করেন অর্থাৎ পঞ্চজ্ঞানেদ্রিয়, পঞ্চ কর্ম্মেন্দ্রিয় ও পঞ্চপ্রাণ ইহাদের সমস্তকর্ম্ম নিরোধ করিয়া আত্মানন্দসুখে মগ্ন থাকেন। ইহার নাম আত্মসংযম বা সমাধি যজ্ঞ।

দ্রব্যযজ্ঞাস্তপোযজ্ঞা যোগযজ্ঞাস্তথাপরে।
স্বাধ্যায়জ্ঞানযজ্ঞাশ্চ যতয়ঃ সংশিতব্রতাঃ।।২৮


অর্থঃ-(২৮) কেহ কেহ দ্রব্যদানরূপ যজ্ঞ করেন, কেহ কেহ তপোরূপ যজ্ঞ করেন, কেহ কেহ যোগরূপ যজ্ঞ করেন, কোন কোন দৃঢ়ব্রত যতিগণ বেদাভ্যাসরূপ যজ্ঞ করেন, কেহ কেহ বেদার্থপরিজ্ঞানরূপ যজ্ঞ সম্পাদন করেন।

অপানে জুহ্বতি প্রাণং প্রাণেহপানং তথাপরে।
প্রাণাপানগতী রুদ্ধা প্রাণায়ামপরায়ণাঃ।
অপরে নিয়তাহারাঃ প্রাণান্ প্রাণেষু জুহ্বতি।।২৯


অর্থঃ-(২৯) আবার অন্য যোগিগণ অপান বায়ুতে প্রাণবায়ু আহুতি প্রদান করেন, (কেহ কেহ) প্রাণে অপানের আহুতি দেন, অপর কেহ পরিমিতাহারী হইয়া প্রাণ ও অপানের গতিরোধ পূর্ব্বক প্রাণায়াম পরায়ণ হইয়া ইন্দ্রিয়গণকে প্রাণে আহুতি দেন।

সর্ব্বেহপ্যেতে যজ্ঞবিদো যজ্ঞক্ষয়িতকল্মষাঃ।
যজ্ঞশিষ্টামৃতভুজো যান্তি ব্রহ্ম সনাতনম্।।৩০
নায়ং লোকোহস্ত্যযজ্ঞস্য কুতোহন্যঃ কুরুসত্তম।।৩১


অর্থঃ-(৩০-৩১) এই যজ্ঞবিদ্‌গণ সকলেই যজ্ঞদ্বারা নিস্পাপ হইয়া থাকেন; যাঁহারা অমৃত-স্বরূপ যজ্ঞাবশিষ্ট অন্ন ভোজন করেন, তাঁহারা সনাতন ব্রহ্মপদ লাভ করেন। হে কুরুশ্রেষ্ঠ! যে কোনরূপ যজ্ঞই করে না, তাহার ইহলোকই নাই, পরলোক ত দূরের কথা (অর্থাৎ ইহলোকেই তাহার কোন সুখ হয় না, পরলোকে আর কি হইবে?)।


একথার তাৎপর্য এই যে, যজ্ঞই সংসারের নিয়ম। প্রত্যেকের কর্ত্তব্য সম্পাদন দ্বারা, পরস্পরের ত্যাগ স্বীকার দ্বারা, আদান-প্রদান দ্বারাই জগৎ চলিতেছে এবং উহাতেই প্রত্যেকের সুখ-স্বাতন্ত্র্য অব্যাহত আছে। যে এই বিশ্ব-যজ্ঞ ব্যাপারে যোগদান করে না, যজ্ঞস্বরূপে স্বীয় কর্ত্তব্য সম্পাদন করে না, তাহার ইহকাল ও পরকাল উভয়ই বিনষ্ট হয়, তাহার জীবন ব্যর্থ হয়।

এবং বহুবিধা যজ্ঞা বিততা ব্রহ্মণো মুখে।
কর্ম্মজান্ বিদ্ধি তান্ সর্ব্বানেবং জ্ঞাত্বা বিমোক্ষ্যসে।।৩২


অর্থঃ-(৩২) এইরূপ বহুবিধ যজ্ঞ ব্রহ্মের মুখে বিস্তৃত (বিহিত) আছে, এ সকলই কর্ম্মজ অর্থাৎ কায়িক, বাচিক বা মানসিক এই ত্রিবিধ কর্ম্ম হইতে সমুদ্ভূত বলিয়া জানিও; এইরূপ জানিলে মুক্তিলাভ করিবে।

শ্রেয়ান্ দ্রব্যময়াদ্ যজ্ঞাজ্ জ্ঞানযজ্ঞঃ পরন্তপ।
সর্ব্বং কর্ম্মাখিলং পার্থ জ্ঞানে পরিসমাপ্যতে।।৩৩


অর্থঃ-(৩৩) হে পরস্তপ, দ্রব্যসাধ্য দৈব্যযজ্ঞাদি হইতে জ্ঞানযজ্ঞ শ্রেষ্ঠ; কেননা, ফল-সহিত সমস্ত কর্ম্ম নিঃশেষে জ্ঞানে পরিসমাপ্ত হয়।

তদ্ বিদ্ধি প্রণিপাতেন পরিপ্রশ্নেন সেবয়া।
উপদেক্ষ্যন্তি তে জ্ঞানং জ্ঞানিনস্তত্ত্বদর্শিনঃ।৩৪


অর্থঃ-(৩৪) গুরুচরণে দণ্ডবৎ প্রণামদ্বারা, নানা বিষয় প্রশ্নদ্বারা এবং গুরুসেবা দ্বারা সেই জ্ঞান লাভ কর। জ্ঞানী, তত্ত্বদর্শী গুরু তোমাকে সেই জ্ঞান উপদেশ করিবেন।

যজ্ জ্ঞাত্বা ন পুনর্ম্মোহমেবং যাস্যসি পাণ্ডব।
যেন ভূতান্যশেষাণি দ্রক্ষ্যস্যাত্মন্যথো ময়ি।।৩৫


অর্থঃ-(৩৫) হে পাণ্ডব, যাহা জানিলে পুনরায় এরূপ (শোকাদি জনিত) মোহ প্রাপ্ত হইবে না, যে জ্ঞানদ্বারা সমস্ত ভূতগ্রাম স্বীয় আত্মাতে এবং অনন্তর আমাতে দেখিতে পাইবে।

অপি চেদসি পাপেভ্যঃ সর্ব্বেভ্যঃ পাপকৃত্তমঃ।
সর্ব্বং জ্ঞানপ্লবেনৈব বৃজিনং সন্তরিষ্যসি।।৩৬


অর্থঃ-(৩৬) যদি তুমি সমুদয় পাপী হইতেও অধিক পাপাচারী হও, তথাপি জ্ঞানরূপ তরণী দ্বারা সমুদয় পাপসমুদ্র ঊত্তীর্ণ হইতে পারিবে।

যথৈধাংসি সমিদ্ধোহগ্নির্ভস্মসাৎ কুরুতেহর্জ্জুন।
জ্ঞানাগ্নি সর্ব্বকর্ম্মাণি ভস্মসাৎ কুরুতে তথা।।৩৭


অর্থঃ-(৩৭) হে অর্জ্জুন, যেমন প্রজ্জ্বলিত অগ্নি কাষ্ঠরাশিকে ভস্মীভূত করে, তেমন জ্ঞানরূপ অগ্নি কর্ম্মরাশিকে ভস্মসাৎ করে।

নহি জ্ঞানেন সদৃশং পবিত্রমিহ বিদ্যতে
তৎ স্বয়ং যোগসংসিদ্ধঃ কালেনাত্মনি বিন্দতি।।৩৮


অর্থঃ-(৩৮) ইহলোকে জ্ঞানের ন্যায় পবিত্র আর কিছু নাই। কর্ম্ম-যোগে সিদ্ধ-পুরুষ সেই জ্ঞান কালসহকারে আপনিই অন্তরে লাভ করে।

শ্রদ্ধাবান্ লভতে জ্ঞানং তৎপরঃ সংযতেন্দ্রিয়ঃ।
জ্ঞানং লব্ধ্বা পরং শান্তিমচিরেণাধিগচ্ছতি।।৩৯


অর্থঃ-(৩৯) যিনি শ্রদ্ধাবান্‌, একনিষ্ঠ সাধন-তৎপর এবং জিতেন্দ্রিয়, তিনিই জ্ঞানলাভ করেন। আত্মজ্ঞান লাভ করিয়া অচিরাৎ পরম শান্তি লাভ করেন।

অজ্ঞশ্চাশ্রদ্দধানশ্চ সংশয়াত্মা বিনশ্যতি।
নায়ং লোকোহস্তি ন পরো ন সুখং সংশয়াত্মনঃ।।৪০


অর্থঃ-(৪০) অজ্ঞ, শ্রদ্ধাহীন, সংশয়াকুল, ব্যক্তি বিনষ্ট হয়, সংশয়াত্মার ইহলোকও নাই, পরলোকই নাই, সুখও নাই।


যে অজ্ঞ, অর্থাৎ যাহার শাস্ত্রাদির জ্ঞান নাই, এবং যে সদুপদেশ লাভ করে নাই এবং যে শ্রদ্ধাহীন অর্থাৎ সদুপদেশ পাইয়াও যে তাহা বিশ্বাস করে না এবং তদনুসারে কার্য্য করে না, সুতরাং যে সংশয়াত্মা - অর্থাৎ যাহার সকল বিষয়েই সংশয় - এইটি কি ঠিক, না ঐটি ঠিক, - এইরূপ চিন্তায় যে সন্দেহাকুল তাহার অত্মোন্নতির কোন উপায় নাই।

যোগসংন্যস্তকর্ম্মাণং জ্ঞানসংচ্ছিন্নসংশয়ম্।
আত্মবন্তং ন কর্ম্মাণি নিবধ্নন্তি ধনঞ্জয়।।৪১


অর্থঃ-(৪১) নিষ্কাম কর্ম্মযোগের দ্বারা যাঁহার কর্ম্ম ঈশ্বরে সমর্পিত হইয়াছে, আত্মদর্শনরূপ জ্ঞানের দ্বারা যাঁহার সকল সংশয় ছিন্ন হইয়াছে, এইরূপ অপ্রমাদী আত্মবিদ্‌ পুরুষকে কর্ম্মসকল আবদ্ধ করিতে পারে না অর্থাৎ তিনি কর্ম্ম করিলেও কর্ম্মফলে আবদ্ধ হন না।
অর্থাৎ - জ্ঞানী কর্ম্ম করিয়াও কর্ম্মে আবদ্ধ হন না,সুতরাং জ্ঞানীরও কর্ম্ম আছে, একথা স্পষ্টই বলা হইল, তবে সে কর্ম্ম অকর্ম্মস্বরূপ।

তস্মাদজ্ঞানসম্ভূতং হৃৎস্থং জ্ঞানাসিনাত্মনঃ।
ছিত্ত্বৈনং সংশয়ং যোগমাতিষ্ঠোত্তিষ্ঠ ভারত।।৪২

অর্থঃ-(৪২) অতএব হে, ভারত, অজ্ঞাতজাত হৃদয়স্থ এই তোমার সংশয়রাশিকে আত্মজ্ঞানরূপ খড়্গদ্বারা ছেদন করিয়া নিস্কাম কর্ম্মযোগ অবলম্বন কর, উঠ, যুদ্ধকর।

তুমি যুদ্ধে অনিচ্ছুক, কারণ তোমার হৃদয়ে নানারূপ সংশয় উপস্থিত হইয়াছে। গুরুজনাদি বধ করিয়া কি পাপভাগী হইব? আত্মীয়-স্বজনাদির বিনাশে শোক-সন্তপ্ত হইয়া রাজ্যলাভেই বা কি সুখ হইবে? এইরূপ শোক, মোহ ও সংশয়ে অভিভূত হইয়া তুমি স্বীয় কর্ত্তব্য বিস্মৃত হইয়াছ। তোমার এই সংশয় অজ্ঞান-সম্ভূত। যাঁহার দেহাত্মবোধ বিদূরিত হইয়াছে, সর্ব্বভূতে একাত্মবোধ জন্মিয়াছে - তাঁহার চিত্তে এ সকল সংশয় উদিত হয় না; তিনি শোক-দুঃখে অভিভূত হন না (‘তত্র কো মোহঃ কঃ শোক একত্বমনুশ্যতঃ’ - ঈশ) ইহাই প্রকৃত জ্ঞান, তাহা পূর্ব্বে বলিয়াছি। শ্রদ্ধা, আত্মসংযম একনিষ্ঠা - সেই জ্ঞান লাভের যে উপায় তাহাও বলিয়াছি। আমার বাক্যে তোমার শ্রদ্ধা আছে, তোমার আত্মসংযম ও একনিষ্ঠা আছে, সুতরাং তোমাকে আমি জ্ঞানোপদেশ দিতেছি। তুমি আত্মজ্ঞান লাভপূর্ব্বক নিঃসন্দেহ হইয়া নিস্কাম কর্ম্মযোগ অবলম্বন কর, স্বীয় কর্ত্তব্য পালন কর, যুদ্ধ কর।

ইতি শ্রীমদ্‌ভগবদ্‌গীতাসূপনিষৎসু ব্রহ্মবিদ্যায়াং যোগশাস্ত্রে।
শ্রীকৃষ্ণার্জ্জুনসংবাদে জ্ঞানযোগো নাম চতুর্থোহধ্যায়ঃ


ভিডিও গীতা কীর্তনঃ https://www.youtube.com/watch?v=4ZRCMkK3bws


সংগৃহীতঃhttp://geetabangla.blogspot.com/
Share this article :
 
Support : Creating Website | Johny Template | Mas Template
Copyright © 2011. সনাতন ভাবনা ও সংস্কৃতি - All Rights Reserved
Template Created by Creating Website Published by Mas Template
Proudly powered by Blogger